chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

ধর্মঘটের মাধ্যমে আমদানি-রপ্তানি ব্যাহতের অপচেষ্টা বন্ধের আহ্বান 

নিজস্ব প্রতিবেদক: বন্দরের অপারেশনাল কার্যক্রমকে জরুরি সেবা হিসেবে অন্তর্ভুক্তের দাবি তুলে কাস্টমস, পরিবহন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংগঠনকে ধর্মঘটের মাধ্যমে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম ব্যাহত করার অপচেষ্টা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন বিজিএমই সহসভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম। একই সঙ্গে বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কার্যক্রম দ্রুত অনুমোদনের দাবি জানান তিনি।

শনিবার (২৫সেপ্টেম্বর) দুপুরে নগেরর বিজিএমই ভবনে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ আহ্বান জানান।

লিখিত বক্তব্যে পোশাক শিল্প সংগঠনের এই নেতা বিদেশি বিনিয়োগ আর্কষণ ও পোশাক শিল্পের বিরজমান সমস্যা নিরসনে বেশ কিছু প্রতিবন্ধকতা তুলে ধরেন। এরমধ্যে ব্যাংকসমূহের প্রধান কার্যালয় চট্টগ্রামে না থাকায় বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে পোশাক শিল্প স্থাপনে ঋণ প্রদানসহ আমদানির ঋণপত্র (এলসি) খোলার জন্য নির্দিষ্ট বৃদ্ধিকরণ সংক্রান্ত বিষয়ে চট্টগ্রাম থেকে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারে না বলে জানান। ফলে বিনিয়োগ বৃদ্ধিসহ শিল্পের আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রমে বিঘ্ন সৃষ্টি হচ্ছে।

তিনি বলেন, রপ্তানিমুখী তৈরি পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠানের আমদানি-রপ্তানি জাতীয় রাজস্ব বোর্ড থেকে মওকুফ করা হয়েছে। কিন্তু স্থানীয় পর্যায়ে কেনাকাটার ক্ষেত্রে কিছু কিছু বিষয়ে উৎস ভ্যাট প্রযাজ্য রয়েছে। উক্ত ভ্যাট আদায়ের কারণে অতিরিক্ত দাবী নামা জারী করা হচ্ছে। যার ফলে পরবর্তীতে প্রতিষ্ঠানের Bin lock সহ আমদানি মেশিনারীজ খালাসে জটিলতা দেখা দেয়।

এছাড়া আমদানি করা পণ্য খালাসে কাস্টমস ও বন্দরের সমন্বয়ের অভাবে শুল্কায়নসহ একই দিনে পণ্য চালানের ডেলিভারী ব্যবস্থার কথা তুলে ধরেন। ভূমির অভাব ও অতি উচ্চ মূল্যের কারণে অনেক বিনিয়োগ বাধাগ্রস্থ এবং করোনাকালীন সংকটে ধর্মঘটের কারণে বন্দরের স্বাভাবিক গতি ব্যাহত হচ্ছে বলে জানান।

এক্ষেত্রে চট্টগ্রামের বাইরে মিরসরাই অর্থনিতক অঞ্চল ও আনোয়ারায় ইকোনোমিক জোন এর মধ্যে পোশাক শিল্প এবং পোশাক শিল্প সংশ্লিষ্ট কারখানা স্থাপনে স্বল্প মূল্যে ভূমি বরাদ্দ, নতুন বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে ব্যাংকগুলোকে সহজ ও স্বল্প ঋণে সুদ প্রদান ছাড়াও কয়েকটি সরকারি-কেবরসকারি ব্যাংকের কার্যালয় চট্টগ্রামে স্থাপন, সরকারি দপ্তরকে ক্ষমতায়ান করা, মিরসরাই মিরসরাই অর্থনিতক অঞ্চলে বিদেশি বিনিয়োগের পাশাপাশি দেশিয় উদ্যোক্তাদের সমান সুযোগ ছাড়াও কর্ণফুলী টানেল, বিমান বন্দর থেকে লালখান বাজার পর্যন্ত ফ্লাইওভার, জলাবদ্ধতাসহ মেগা প্রকল্পের দ্রুত বাস্তবায়ন চেয়েছেন।

এসময় বিজিএমই এর বেশ কয়েকজন নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আরকে/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...