chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

কোতোয়ালীতে একাধিক বাসায় চুরি, গ্রেপ্তার ২

নিজস্ব প্রতিবেদক: চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালী থানার পাথরঘাটা চুরিয়ালটুলী লেইনের দুটি বাসার প্রধান দরজায় তালা লাগানোর হ্যান্ডেল কেটে নগদ টাকা, এলইডি টিভি, ব্লেন্ডার মেশিন, দামি পোশাক ও বিভিন্ন ধরনের মালামাল চুরির ঘটনা ঘটে।

গত ১৯ জুলাই রাত থেকে ২২ জুলাই ভোরের কোন এক সময়ে এ চুরির ঘটনা ঘটে। জানাজানি হয় ২৩ জুলাই। এরপর কোতোয়ালী থানায় মামলা হয়।

অন্যদিকে গত ২৭ জুলাই থেকে ২৯ জুলাই ভোর ৬টার মধ্যে একই এলাকার সর্দারের বাড়ী নিচ তলার একটি ভাড়া বাসাতেও একই কায়দায় চুরির ঘটনা ঘটে।

ওই বাসা থেকেও নগদ এক লাখ ৮০ হাজার টাকা, সাড়ে সাত ভরি স্বর্ণ ও ৩ ভরি রুপার অলংকার চুরি করা হয়। এ ঘটনায় কোতোয়ালী থানায় অভিযোগ দায়ের হয় ৩০ জুলাই।

তাছাড়া এর আগে গত ১৩ মে বিকেল থেকে ১৬ মে সকালের কোন এক সময়ে পাথরঘাটা ৩নং চুরিয়ালটুলি লেইনস্থ আব্দুল জব্বার সওদাগরের বিল্ডিং এ বাসার দরজার তালা ভেঙ্গে ৯ ভরি ৬ আনা স্বর্ণ, ৬ ভরি রূপা, ১টি ল্যাপটপ ও নগদ ২০ হাজার টাকা চুরির ঘটনা ঘটে। মামলা হয় ১৮ জুন।

সম্প্রতি এ তিন মামলার সূত্র ধরে চুরির ঘটনার সাথে জড়িত দুর্ধর্ষ এক চোরকে শনাক্ত করে কোতোয়ালী থানা পুলিশ। আজ বুধবার সকালে কর্ণফুলী সৈন্যারটেকে অভিযান চালিয়ে এসব চুরির ঘটনায় জড়িত মো. বাবলুকে গ্রেফতার করা হয়।

বাবলু ফেনী জেলার সোনাগাজী থানা হাজীপুরের নাদু মিয়ার ছেলে। তাছাড়া তার দেয়া তথ্যমতে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী ইছানগর বিএফডিসি গেইট সংলগ্ন লায়লা টাওয়ারের স্বর্ণ ব্যবসায়ী উত্তম দে কেও গ্রেফতার করে পুলিশ।

বাবলুর কাছ থেকে চোরাই স্বর্ণ ক্রয় করার অপরাধে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। উত্তম রাউজান ৯ নং ইউপি ৬ নং ওয়ার্ড অক্ষয় দে বাড়ির বাবলু দের ছেলে বলে জানা গেছে।

গ্রেফতার বাবলুর দেয়া তথ্য মতে বাবলুর কর্ণফুলী থানাধীন বাসায় অভিযান চালিয়ে একটি চোরাই স্বর্ণের চেইন, দুই জোড়া স্বর্ণের পাশা দুল, একটি ল্যাপটপ, একটি ৩২ ইঞ্চি এলইডি টেলিভিশন, ব্লেন্ডার মেশিন, একটি স্বর্ণের আংটি ও নগদ ৪৬৪০ টাকা উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ জানায়, বাবলু বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে দেখে সন্ধ্যার সময় কোন বাসা বাড়িতে বাতি জ্বলছে না। এরপর আলোহীন বাসাকে সে টার্গেট করে এবং রাতো সুযোগ বুঝে বাসার তালা ভেঙ্গে প্রবেশ করে স্বর্ণালংকারসহ মূল্যবান জিনিসপত্র চুরি করে। পরে চোরাই স্বর্ণগুলো কমদামে কিনে নেন স্বর্ণ ব্যবসায়ী উত্তম দে।

কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ নেজাম উদ্দীন বলেন, বাবলু পেশাদার চোর। জিজ্ঞাসাবাদে সে চুরিয়াটুলীর একাধিক বাসায় চুরি করার কথা স্বীকার করে।

ওসি বলেন, চুরি করা মালামাল বাবলু তার কর্ণফুলী থানাধীন বর্তমান বাসায় নিয়ে যায় এবং সেখান থেকেই সব বিক্রি করে। চুরি করা স্বর্ণের ব্যাপারে জানতে চাইলে সে উত্তম দে নামে অপর একজনের নাম প্রকাশ করে। যিনি তার চোরাই স্বর্ণগুলো কিনে নেন।

বাবলু তার কাছে অন্তত ১৫ ভরি চোরাই স্বর্ণ বিক্রি করার কথা স্বীকার করে। পরে তার দেওয়া তথ্যমতে অভিযান চালিয়ে উত্তমকেও গ্রেফতার করা হয়। উত্তম চোরাই স্বর্ণা ক্রয় করে বিক্রি করার কথা স্বীকার করে।

ওসি জানান, গ্রেফতার বাবলু গত ৫ বছর ধরে চট্টগ্রাম মহানগরের বিভিন্ন স্থানে প্রায় সাড়ে ৩শটি চুরির ঘটনার সাথে জড়িত। তার বিরুদ্ধে সদরঘাট থানায় একাধিক মামলা আছে। বেশ কয়েকটি মামলায় গ্রেফতারও হয়। সম্প্রতি সে জামিনে বের হয়ে পুনরায় চুরি পেশায় লিপ্ত হয়েছে।

আরএস/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...