chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

নেটফ্লিক্স থেকে আপত্তিকর মন্তব্য সরাতে ফের প্রতিবাদ বিজিএমইএর

বাণিজ্য ডেস্ক: ডেভিড শ্যারন পরিচালিত ‘লাস্ট মার্সেনারি’ নামে সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত ফরাসি সিনেমায় ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ নিয়ে অবমাননাকর উক্তি করা হয়। নেটফ্লিক্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও চলচ্চিত্রের পরিচালককে ৯ আগস্ট পাঠানো চিঠিতে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে বলা হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো প্রতিকার মেলেনি।তাই ফরাসি চলচ্চিত্রে ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ ব্র্যান্ড নিয়ে আপত্তিকর সংলাপটি নেটফ্লিক্স থেকে অনতিবিলম্বে অপসারণের আবারও অনুরোধ জানিয়েছেন বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান।

বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) বিজিএমইএর পক্ষে ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত কাজী ইমতিয়াজ হোসেনকে পাঠানো চিঠিতে এই অনুরোধ জানানো হয়। চিঠিতে বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, অর্থনীতি আর সামাজিক বিষয়গুলোতে বাংলাদেশ ও ফ্রান্সের মধ্যকার সম্পর্ক কয়েক দশক ধরে বিরাজমান। ফ্রান্সের সঙ্গে বাংলাদেশের ইতিবাচক দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্ক নিশ্চিত করার বিষয়ে আপনার সমর্থন ও প্রচেষ্টার জন্য আমরা কৃতজ্ঞ।

আপনার এই সমর্থন প্রদানের বিষয়টিকে সামনে রেখে গত ৯ আগস্ট একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আপনাকে চিঠি দিয়েছিলাম। চিঠিতে জানিয়েছিলাম, ডেভিড শ্যারন পরিচালিত ‘লাস্ট মার্সেনারি’ নামে সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত ফরাসি মুভিতে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ সম্পর্কে অবমাননাকর মন্তব্য রয়েছে।

মেইড ইন বাংলাদেশ’ শুধু যে আমাদের জাতির জন্য গর্বের বিষয়, তা নয়। এর ব্যাপ্তি আরও ব্যাপক। এর মধ্য দিয়ে জাতি হিসেবে আমাদের গৌরবময় আত্মপ্রকাশ ঘটেছে। ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ এর মূল লক্ষ্য হলো দেশের ব্র্যান্ডিং।

এর আগে আমরা নেটফ্লিক্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও চলচ্চিত্রের পরিচালককে আমাদের এই উদ্বেগের বিষয়টি জানিয়েছিলাম। কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো, তাদের কাছ থেকে এই বিষয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া পাইনি। চলচ্চিত্রটি এখনও নেটফ্লিক্সের প্লে-লিস্টে আছে এবং চলচ্চিত্র থেকে সেই আপত্তিকর সংলাপ সরিয়ে ফেলা হয়নি।

বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, সত্যিকার অর্থে, আমরা বিশ্বদরবারে আমাদের পোশাকশিল্পকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছি। তাই পোশাকশিল্পকে নিয়ে অবমাননাকর মন্তব্য আমাদের ব্যথিত করেছে। আমরা এর নিন্দা জানাই এবং প্রশ্নবিদ্ধ সংলাপটি অনতিবিলম্বে অপসারণের জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।

বিজিএমইএ পরিচালক মহিউদ্দিন রুবেল বলেন, নেটফ্লিক্সে মুক্তি পাওয়া ফরাসি সিনেমায় বাংলাদেশের পোশাক শিল্প নিয়ে অবমাননাকর একটি সংলাপে আপত্তি জানিয়ে তা প্রত্যাহার করার জন্য আমরা গত ৭-৯ই আগস্ট বিজিএমইএ থেকে নেটফ্লিক্সের সিইও, চলচ্চিত্র পরিচালক, ফ্রান্সে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এবং বাংলাদেশে ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে পত্র প্রদান করা হয়। কিন্তু এ ব্যপারে আমরা এখনও আশাব্যঞ্জক কোনো পদক্ষেপ দেখতে পাইনি। তাই এ ব্যাপারে দ্রুত ও কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়ে আমরা পুনারায় ফ্রান্সে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও বাংলাদেশে ফরাসি রাষ্ট্রদূত বরাবর পত্র লিখেছি।

তিনি বলেন, আমরা আশা করছি এ ব্যাপারে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া হবে। যদি এ ব্যাপারে পদক্ষেপ না নেওয়া হয়, তাহলে পরবর্তী পদক্ষেপ কি হতে পারে সে বিষয়ে আমরা চিন্তা করব। এ ধরনের আপত্তিকর মন্তব্য প্রত্যাহারের জন্য আমরা সর্বোচ্চ পর্যায়ে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা করব।

এন-কে

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...