chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

সিনহা হত্যাকাণ্ড : দ্বিতীয় দফায় শেষ দিনের সাক্ষ্য চলছে

নিজস্ব প্রতিবেদক : সেনাবাহিনীর (অবঃ) মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলায় দ্বিতীয় দফায় শেষ দিনের সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়েছে। প্রতিবারের মতো বুধবার সকালেও মামলার প্রধান আসামি প্রদীপ কুমার দাশসহ ১৫ জনকে আদালতে নেয়া হয়েছে।

আদালতের একাধিক আইনজীবী জানিয়েছে, বুধবার প্রত্যক্ষদর্শী সাক্ষী শওকত ও সাইফুলের সাক্ষ্য নেয়ার কথা আছে। এর আগে সোমবার পাঁচ নম্বর সাক্ষী টেকনাফের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক কামাল হোসেন ও মঙ্গলবার আট নম্বর সাক্ষী মোহাম্মদ হাফিজ আমিনের সাক্ষ্য গ্রহণ ও আসামিপক্ষের আইনজীবীদের জেরা হয়। কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেনের আদালতে সরকারপক্ষের কৌঁসুলি ফরিদুল আলম, অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট মোজাফফর আহমদ, এপিপি ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জিয়া উদ্দিন আহমদ সাক্ষীদের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন।

এর আগে প্রথম দফায় চলতি বছরের ২৩ থেকে ২৫ আগস্ট মামলার প্রথম সাক্ষী মেজর সিনহার বোন ও মামলার বাদী শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌসী এবং হত্যাকাণ্ডের অন্যতম প্রত্যক্ষদর্শী সাইদুল ইসলাম সিফাত আদালতে উপস্থিত হয়ে সাক্ষ্য দেন। কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারপক্ষের কৌঁসুলি ফরিদুল ইসলাম জানান, দ্বিতীয় দফায় এ মামলার ৩ থেকে ১৫ নম্বর সাক্ষীদের আদালতে উপস্থিত হয়ে সাক্ষ্য দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু আসামিপক্ষের অসংগতিপূর্ণ জেরায় সময়ক্ষেপণের কারণে তা সম্ভব হচ্ছে না। প্রথম দফায় দুজন ও দ্বিতীয় দফায় চারজনসহ ৬ জনের সাক্ষ্য নেয়া সম্ভব হয়েছে।

এ মামলার মোট সাক্ষী ৮৩ জন। সবার সাক্ষ্য নিতে ছয় মাসেরও বেশি সময় লাগবে বলে ধারণা করছেন কৌঁসুলি ফরিদুল। ২০২০ সালের ৩১ জুলাই টেকনাফের শামলাপুর চেকপোস্টে মেজর সিনহা নিহত হন পুলিশের গুলিতে। টেকনাফ থানার তৎকালীন ওসি প্রদীপ, বাহারছড়া তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ লিয়াকতসহ ৯ জনকে আসামি করে মামলা করেন সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌসী।

পরে গ্রেপ্তার করা হয় ঘটনার সময় আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের তিন সদস্যসহ পুলিশের তিন সোর্সকে। চার মাসেরও বেশি সময় তদন্ত শেষে গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর ১৫ জনকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র দেয় তদন্তকারী সংস্থা র্যাব। এর মধ্যে ১২ আসামি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। গত ২৭ জুন মামলার ১৫ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে আদালত। আলোচিত এই মামলার ১৫ আসামি কারাগারে রয়েছে।

এসএএস/জেএইচ/চখ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...