chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

কথা রাখলো না তালেবানরা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আফগানিস্তানে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার গঠন করেছে তালেবান, সেইসাথে দেশটিকে ‘ইসলামিক আমিরাত’ হিসাবেও ঘোষণা করা হয়েছে। তবে কথা রাখেনি তালেবান। নতুন মন্ত্রিপরিষদে স্থান পেয়েছেন শুধুমাত্র তালেবান বাহিনীর নেতারা। যাদের অনেকে আবার গেলো দুই দশক ধরে দেশটিতে অবস্থানরত মার্কিন সেনাদের ওপর হামলার জন্য কুখ্যাত হিসেবে পরিচিত।

মন্ত্রিসভার নেতৃত্বে থাকছেন, মোল্লাহ মোহাম্মদ হাসান আখুন্দ, যিনি তালেবানের প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে অন্যতম এবং জাতিসংঘের কালো তালিকাভুক্ত। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হয়েছেন- হাক্কানী জঙ্গী গোষ্ঠীর নেতা সিরাজউদ্দীন হাক্কানী। যদিও, তালেবান নেতারা আগে থেকেই বলে আসছিলেন যে, তারা অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠন করতে চায়, অর্থাৎ নারী-পুরুষ এবং সংখ্যালঘু নির্বিশেষে সবাইকে নিয়ে মন্ত্রিপরিষদ গঠন করতে চায়। তবে তার কোনো বহি:প্রকাশ ঘটেনি নতুন মন্ত্রিপরিষদে।

এরইমধ্যে নতুন মন্ত্রীদের ইসলামী শরীয়াহ আইন প্রণয়নের নির্দেশ দিয়েছেন তালেবানের সর্বোচ্চ নেতা মোল্লাহ মোহাম্মদ হাসান আখুন্দ। যদিও এপর্যন্ত প্রকাশ্যে আসেননি তিনি। তালেবান ক্ষমতা নেয়ার পর এটিই তার প্রথম বার্তা।

এদিকে অন্তর্বর্তীকালীন এই সরকার তালেবানের স্থায়ী সরকার গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে মনে করছেন তালেবান নেতারা। নতুন নির্বাচিত নেতারা একটি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হবেন এবং আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাবেন বলেও মনে করছেন তারা।

এই সরকারের প্রধানমন্ত্রী আখুন্দজাদা ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০১ পর্যন্ত উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন, যখন তালেবান সবশেষ ক্ষমতায় ছিলো। তিনি মূলত, সামরিক দিকের চেয়ে ধর্মীয় দিক দিয়ে বেশি প্রভাবশালী।

প্রায় তিন সপ্তাহ আগে দেশটির আগের সরকারকে বহিষ্কার করে পুরো নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান।

এন-কে

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...