chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

প্রয়াত সাংবাদিকদের পরিবারের পাশে থাকার দৃঢ় প্রত্যয়

নিজস্ব প্রতিবেদক: ‘সাম্প্রতিক সময়ে একসাথে চারজন সহকর্মীর শোকসভায় শোক প্রকাশ করা সত্যিই হৃদয় বিদারক এবং বেদনাদায়ক ব্যাপার। আমাদের কাছ থেকে বিদায় নিয়েছেন কয়েকজন সাংবাদিক। প্রয়াত সাংবাদিক পরিবারের পাশাপাশি আমরাও গভীরভাবে শোকাহত।’

প্রবীণ সাংবাদিক কবি অরুণ দাশগুপ্ত, প্রবীণ সাংবাদিক তমাল চৌধুরী, প্রবীণ সাংবাদিক আবদুস শুক্কুর এবং সিনিয়র ফটো সাংবাদিক দিদারুল আলমের মৃত্যুতে আয়োজিত শোকসভায় সাংবাদিক নেতৃবৃন্দরা এ মন্তব্য করেন।

আজ শনিবার (২৮ আগস্ট) শনিবার সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের এস রহমান মিলনায়তনে উক্ত শোকসভা আয়োজন করা হয়। চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব এবং চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত শোকসভায় সভাপতিত্ব করেন ক্লাবের সভাপতি আলহাজ্ব আলী আব্বাস।

চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শামসুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত শোকসভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ।

সভাপতির বক্তব্যে আলহাজ্ব আলী আব্বাস প্রয়াত চারজন সাংবাদিকের আত্মার শান্তি কামনা করে বলেন, আজ যাদের উদ্দেশ্যে শোকসভা, তারা প্রত্যেকেই স্ব স্ব ক্ষেত্রে আলোকিত মানুষ ছিলেন। তাদের ব্যাপারে বলতে গেলে শেষ করা যাবে না। তিনি অতীতের ন্যায় ভবিষ্যতেও ব্যক্তিগতভাবে এবং প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে প্রয়াত সাংবাদিকদের পরিবারের পাশে থাকার দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

প্রেস ক্লাব সভাপতি আরও বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার প্রচেষ্টায় সাংবাদিকদের জন্য আপদকালীন ফান্ড গঠিত হয়েছিল। উক্ত ফান্ড থেকে চট্টগ্রামের সাংবাদিকদের অনুদান প্রদানের জন্য আমাকে প্রেস ক্লাবের পক্ষ থেকে দায়িত্ব নিতে বলেছিলেন। কিন্তু আমাদের মাদার সংগঠন হিসেবে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নকে দায়িত্ব দেয়ার কথা বলেছি।

শোকসভায় স্মৃতিচারণ করেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোহাম্মদ আলী, প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি কলিম সরওয়ার, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহসহভাপতি সালাহউদ্দিন মো. রেজা, সহ সভাপতি স ম ইব্রাহীম, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি এম নাসিরুল হক ও শহীদ উল আলম, বিএফইউজে’র যুগ্ম মহাসচিব মহসীন কাজী, সাবেক যুগ্ম মহাসচিব তপন চক্রবর্তী, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক নজরুল ইসলাম, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি অনিন্দ্য টিটো ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সবুর শুভ, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সাবেক সাধারণ সম্পাদক নির্মল চন্দ্র দাশ, চট্টগ্রাম সাংবাদক হাউজিং সোসাইটির সাবেক চেয়ারম্যান মইনুদ্দীন কাদেরী শওকত, দৈনিক নয়া বাংলার সম্পাদক জেড এম এনায়েত উল্লাহ, প্রবীণ সাংবাদিক জাহিদুল করিম কচি, মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক দেবপ্রসাদ দাস, সাইফুল্লাহ চৌধুরী প্রমুখ।

কবি অরুণ দাশগুপ্ত বাংলা সাহিত্য-শিল্প-সংস্কৃতি সম্পর্কে ব্যাপক জ্ঞানের অধিকারী ছিলেন। দীর্ঘদিন ধরে চট্টগ্রামের প্রাচীন পত্রিকা দৈনিক আজাদীতে সহযোগী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

তমাল চৌধুরী জীবনের সিংহভাগ সময় ব্যয় করেছেন ক্রীড়া জগতের সংবাদ পরিবেশনের ক্ষেত্রে। তিনি দীর্ঘদিন ডেইলি লাইফ পত্রিকা ছাড়াও বাংলাদেশ বেতার চট্টগ্রাম কেন্দ্রে কাজ করেছেন।

আবদুস শুক্কুর দীর্ঘদিন আজাদীতে কাজ করেছেন। তিনি সাংবাদিকদের প্রিয় মানুষ ছিলেন। তাছাড়া দিদারুল আলম মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বাংলাদেশ প্রতিদিনের চট্টগ্রাম ব্যুরোতে সিনিয়র স্টাফ ফটো সাংবাদিক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

এর আগে তিনি চট্টগ্রাম ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের গ্রন্থাগার সম্পাদক এবং চট্টগ্রাম সাংবাদিক কো-অপারেটিভ হাউজিং সোসাইটির পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেছেন। বক্তারা নিহত সাংবাদিকদের পরিবারের পাশে থাকার পাশাপাশি তাদের কল্যাণ ও সুস্থতা কামনা করেন।

শোকসভার শুরুতে প্রয়াত সকল সাংবাদিকের আত্মার শান্তি কামনায় এক মিনিট দাড়িয়ে নীরবতা পালন করা হয়।

এসময় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের গ্রন্থাগার সম্পাদক মিন্টু চৌধুরী, সমাজসেবা ও আপ্যায়ন সম্পাদক মো. আইয়ুব আলী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আলীউর রহমান, কার্যকরী সদস্য দেবদুলাল ভৌমিক, মনজুর কাদের মনজু এবং চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের বর্তমান ও সাবেক নেতৃবৃন্দসহ বিপুল সংখ্যক সাংবাদিক উপস্থিত ছিলেন।

আরএস/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...