chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

সমন্বিত উদ্যোগের অভাবে জলাবদ্ধতা নিরসন হচ্ছে না: শাহাদাত

নিজস্ব প্রতিবেদক: সমন্বিত উদ্যোগের অভাবে চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা নিরসন করা সম্ভব হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন।

আজ শুক্রবার বিকেলে চকবাজার ডিসি রোড ও ধুনিরপুল এলাকায় করোনা-ডেঙ্গু সচেতনতায় জনসাধারণের মধ্যে লিফলেট বিতরণের সময় এ মন্তব্য করেন তিনি।

ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, গত কয়েক বছর ধরে বৃষ্টিহীন দিনেও জলাবদ্ধতা নগরের স্বাভাবিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই পুরো নগর পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে। গত মঙ্গলবার এক রাতের সামান্য বৃষ্টিতেই আবারও নগরে ভয়াবহ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়।

‘এতে নগরের বিভিন্ন এলাকার সড়ক, দোকানপাট ও বাসাবাড়ি হাঁটু থেকে কোমর পানিতে তলিয়ে যায় এবং মুরাদপুরে নালায় পড়ে সালেহ আহমদ নামে এক পথচারী নিখোঁজ হয়। এখন পর্যন্ত তার সন্ধান মেলেনি।’

তিনি বলেন, আমরা মনে করি, সঠিক পরিকল্পনা ও সমন্বিত উদ্যোগের অভাবেই চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা নিরসন করা সম্ভব হচ্ছে না। প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ শুরুর চার বছর পরও নগরবাসী জলাবদ্ধতার দুর্ভোগ থেকে মুক্তি পাচ্ছে না।

‘জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রায় ১১ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে চারটি প্রকল্প চলমান থাকার পরও সুফল না পাওয়ার কারণ হচ্ছে সমন্বয়হীনতা ও দুর্নীতি। চট্টগ্রামের এমপি, মন্ত্রী, মেয়রসহ সংশ্লিষ্ট কারও পক্ষে এ দায় এড়ানোর সুযোগ নেই। আওয়ামী লীগের অযোগ্যতা ও ব্যর্থতার কারণেই সামান্য বৃষ্টিতে চট্টগ্রাম নগর পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে।’

নগর বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘করোনা মহামারির এ সময়ে ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়াসহ মশার উৎপাত যে হারে বেড়েছে তাতে নগরবাসী আতংকিত। মশার উপদ্রবে মানুষ ঘরে টিকতে পারছে না। দিনে রাতে মশার উৎপাতে নগরবাসী এখন অস্থির।

‘বিভিন্ন খাল, নালা বর্জ্য ও মাটি দিয়ে ভরাট হওয়ায় স্বাভাবিক পানি চলাচলে ব্যাঘাত ঘটছে। নালায় জমে থাকা পানি এবং জলাবদ্ধতার পানির কারণে মশার প্রজনন বেড়েছে। সঠিক সময়ে নালা পরিষ্কার করতে ব্যর্থ হওয়ায় এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে।’

এমআই/চখ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...