chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

ফাইজার-অ্যাস্ট্রোজেনেকার টিকার কার্যকারিতা ৬ মাসে কমতে শুরু করে

নিজস্ব প্রতিবেদক: ফাইজার-বায়োএনটেক এবং অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার প্রস্তুতকৃত করোনা টিকার দুই ডোজ গ্রহণের সময় ছয় মাস পর হলে কার্যকারিতা কমতে থাকে বলে যুক্তরাজ্যভিত্তিক একটি গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে। ফলে, বুস্টার ডোজের প্রয়োজন রয়েছে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

গবেষণায় দেখা গেছে, ফাইজারের করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার ৫ থেকে ৬ মাস পর এর শুরু দিকের কার্যকারিতা ৮৮ শতাংশ থেকে নেমে তা চলে আসে ৭৪ শতাংশে। অন্যদিকে, অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার ৬ মাস পর কার্যকারিতাও ৭৭ শতাংশ থেকে ১০% কমে নেমে যায় ৬৭ শতাংশে।

নতুন এই গবেষণার ফলাফল নির্ধারণ করা হয়েছে ১২ লাখের অধিক করোনা পরীক্ষার ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে।তথ্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে করোনাসংক্রান্ত অ্যাপ জেডওই কোভিডের সহায়তা নিয়েছেন গবেষকরা।

গবেষণার প্রধান সমন্বয়কারী টিম স্পেক্টর জানান, আমাদের গবেষণার ফলাফল স্বাভাবিকভাবেই উদ্বেগজনক। এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া খুবই প্রয়োজন। যেখানে প্রতিদিনই সংক্রমণ ও সক্রিয় রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে, সেখানে আমরা চুপচাপ বসে থাকতে পারি না। সবচেয়ে আতঙ্কের বিষয় হলো শীতকালে বয়স্ক ও স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের দেহে ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা ৫০ শতাংশ পর্যন্ত নেমে আসতে পারে।

এর পূর্বেও একাধিক গবেষণার ফলাফলে উঠে এসেছে যে, টিকা নেওয়ার ৬ মাস পর কার্যকারিতা কমতে থাকে। করোনায় বয়স্ক এবং অতিরিক্ত ঝুঁকিতে থাকা ব্যক্তিদের টিকার তৃতীয় ডোজ দেওয়ার অনুমোদনের বিষয়টি যুক্তরাজ্য সরকার গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিবিসি।

ইনি/এনএনআর/ চখ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...