chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

সম্পত্তি রক্ষায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা চান রত্না

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভূমি দস্যুদের তৎপরতায় পৈতিক সম্পত্তি রক্ষায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা চেয়েছেন নগরের পাথরঘাটা এলাকার বাসিন্দা রত্না চক্রবর্তী।

মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) দুপুরে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন থেকে তিনি এ দাবি তুলে ধরেন তিনি। রত্না চক্রবর্তীর হয়ে সংবাদ সম্মেলন লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন তার মেয়ে নিপা চক্রবর্তী।

লিখিত বক্তব্যে নিপা বলেন, ১৯৪৯ সালে আর.এস খতিয়ান মতে নগরের পাথরঘাটার সতীশ বাবু লেইন এলাকার একটি ভূমির মালিক ছিলেন জীবন কৃষ্ণ চক্রবর্তী। তার মৃত্যুর পর তিনি দুই সন্তান মহনলাল কৃষ্ণ চক্রবর্তী ও ধরণী ধরকে যৌথভাবে জমির মালিকানার উইল করে যান। ওই ভূমির ওপর দু“তলা একা পাকা ভবন ভোগ করে আসছিল দুই সন্তানের ওয়ারিশরা। ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় এক সময় ভবনটি ভাঙতে চিঠি দেয় সিটি করপোরেশন।

নিপা দাবি করেন, ভবনটি ভেঙে ফেলার পর আমার পিসির তিন সন্তানকে ভূমি দস্যুরা বিভ্রান্ত করে ২০১৩, ২০১৭ ও ২০১৯ সালে জাল দলিল দিয়ে ভূমির উন্নয়ন চুক্তি করে। নগরের ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বাবু জহরলাল হাজারীর যোগসাজেশে বি. এস. খতিয়ান করা হয়।

গত রোববার (২২ আগস্ট) ৩২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউসিন্সলরের প্রত্যক্ষ মদদে আমার মা রত্না চক্রবর্তী ও আমাকে মারতে উদ্যেত হয় তারা।

এ ঘটনায় থানায় সাধারণ ডায়েরী, অভিযোগ কিংবা মামলা করেননি? এমন প্রশ্নে নিপা বলেন, দুইটি অবৈধ দানপত্র নিয়ে ১ম যুগ্ম জেলা আদালত, নালিশী ভূমি ও অপর্তি সম্পত্তি প্রত্যাপর্ণে ট্রাইবুনালে এবং আপিল ট্রাইবুনালে মামলা রয়েছে। প্রায় সময় থানায় বৈঠক হয়েছে। মামলা হওয়ার পর কাউন্সিলর জহরলাল হাজারী ভূমির চুক্তিপত্র কীভাবে করলেন? আমরা আত্মসাৎকৃত সম্পত্তি রক্ষায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তা কামনা করছি।

সংবাদ সম্মেলনে সেবা সংঘ চট্টগ্রাম জেলার সভাপতি বৌদ্ধময় রক্ষিত, স্বাধীনতা পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব দীপক মালিকসহ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আরকে/ এনএনআর

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...