chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

সশরীরে ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করলেন চবি শিক্ষক মাইদুল

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রশাসনের চাপের মুখে পূর্বঘোষিত সশরীরে ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করেছেন বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) সমাজতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাইদুল ইসলাম।

রবিবার (২২ আগস্ট) ১১টায় ক্লাস নেওয়ার কথা থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের সামনে এসে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দিয়ে তিনি ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্তটি প্রত্যাহার করেন।
ক্লাসের উদ্দেশ্যে বিভিন্ন বিভাগের ২০ থেকে ২৫ জন শিক্ষার্থী সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ প্রাঙ্গণে উপস্থিত হন।

দীর্ঘ ১৮ মাস শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় গত বুধবার (১৮ আগস্ট) ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে সশীরের মুক্তপ্রাঙ্গণে প্রতীকী ক্লাস নেওয়ার ঘোষণা দেন মাইদুল ইসলাম।

ক্লাস প্রত্যাহারের বিষয়ে মাইদুল ইসলাম বলেন, প্রশাসনের বাধার মুখে আমি ক্লাস প্রত্যাহার করি। গতকাল থেকে মুহুর্মুহু ফোন করে বলা হয় যাতে আমি ক্লাসটা না নিই। এছাড়া প্রশাসন থেকে এবিষয়ে একটি চিঠিও ইস্যু করা হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রতীকী ক্লাস নেওয়ার কোন আইনি ঝামেলা নেই। এটা আমাদের সাংবিধানিক অধিকার। আমার আতঙ্কের জায়গা হচ্ছে, এই ক্লাস কিংবা শিক্ষা এটার পুরোটাকে ক্রিমিনালাইজ করা হচ্ছে এবং শিক্ষার্থীদের ডিমোরালাইজ করা হচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভূঁইয়া বলেন, সেখানে প্রশাসনের কেউ যায়নি, কেউ তাকে বাধা দেয়নি। সশরীরে ক্লাস নিলে এখনও করোনা আক্রান্তের ঝুঁকি আছে। দেশে এখনও শতাধিক করে লোক মারা যাচ্ছে। সরকার ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন দ্রুত সবাইকে ভ্যাকসিনের আওতায় এনে বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেবে। তাই ছাত্রছাত্রীদের করোনা আক্রান্তের ঝুঁকি এড়ানোর জন্য আমারা তাকে অনুরোধ করেছিলাম সশরীরে না নিয়ে অনলাইনে ক্লাস গুলো শেষ করার।

চিঠির বিষয়ে তিনি বলেন, চিঠিতে আমরা তাকে রিমাইন্ড করে দিয়েছিলাম। চবিতে অনলাইন ক্লাস চলমান এবং বিভিন্ন বিভাগের অনলাইন ক্লাস প্রায় শেষের দিকে। তার ক্লাস বাকি থাকলে তিনি যেন অনলাইনে ক্লাসগুলো শেষ করেন।

প্রগতিশীল ছাত্রসংগঠনসমূহের নিন্দা

সমাজতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষক মাইদুল ইসলামকে প্রতীকী ক্লাস করতে না দেওয়ার প্রতিবাদ জানিয়েছে প্রগতিশীল ছাত্রসংগঠনসমূহ। রবিবার দুপুরে এক যৌথ বিবৃতিতে প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বাভাবিক নিয়মে শ্রেণি কার্যক্রম শুরু করার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি দাবি জানান তারা।

বিবৃতিতে মাইদুল ইসলামের প্রতি আজকের আচরণকে ন্যাক্কারজনক আখ্যা দিয়ে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মৌলিক চরিত্র ক্ষুণ্ণের জন্য প্রশাসনকে দায়ী করে সংগঠনগুলো।

প্রতিবাদকারী সংগঠনসমূহ হচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সংসদ, গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিল, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা, পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা, বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।

এসএএস/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...