chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

করোনায় জীবন-জীবিকার সংকটে মানুষ

ডেস্ক নিউজ : করোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় জীবন-জীবিকা নিয়ে উভয় সংকটে পড়েছে সাধারণ মানুষ। সংক্রমণ ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়ায় ফের কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করেছে সরকার।

এ পরিস্থিতিতে সঞ্চয় ভেঙে খাওয়া মানুষদেরও এখন দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ার অবস্থা। কর্মসংস্থান হারিয়ে গত বছর যারা শহর ছেড়েছিল তারা আবার ফিরে আসার স্বপ্ন দেখছিল। কিন্তু করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা তাদের নতুন সংকটে ফেলেছে।

এমনিতেই কাজ হারিয়ে সাধারণ মানুষের দুর্বিষহ অবস্থা, তার ওপর নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি শুধু শহর নয়, গ্রামীণ এলাকায়ও ছড়িয়ে পড়েছে। পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) হিসাবে গ্রামীণ এলাকায় খাদ্যে মূল্যস্ফীতির হার এখন ৬ শতাংশ ছাড়িয়েছে। সব মিলিয়ে গত আট মাসের মধ্যে জুনে দেশে সর্বোচ্চ ৫ দশমিক ৬৪ শতাংশ মূল্যস্ফীতি লক্ষ্য করা গেছে।

করোনা শুরুর আগে বিশ্বব্যাংকের এক হিসাবে বাংলাদেশের মানুষ স্বাস্থ্যসেবায় প্রায় ৭৪ শতাংশ অর্থ নিজ পকেট থেকে ব্যয় করত। সরকারিভাবে হাসপাতালগুলোতে যে খরচ করা হয় সেটি প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল সেটি স্পস্ট। করোনার এই সময়ে বাড়তি ব্যয় যোগ হয়েছে। করোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় বহু পরিবার তছনছ হয়ে যাওয়ার খবর এখন নিত্যদিনের।

করোনার দীর্ঘায়িত প্রভাবে ক্রমেই নিঃস্ব হয়ে পড়ছে সাধারণ মানুষ। আয় কমে যাচ্ছে। জীবন রক্ষার তাগিদে জীবিকা হারাচ্ছে তারা। দারিদ্রসীমার নিচে নেমে অনেকের দুই বেলা খেয়ে পরে থাকাই কষ্টকর হচ্ছে। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, সাধারণ মানুষের আয় কমে গেছে, তাদের ক্রয়ক্ষমতা কমছে। আর ক্রয়ক্ষমতা কমলে সার্বিক অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। ফলে শুধু উৎপাদনকারী ক্ষতিগ্রস্ত হবে না, সরকারের রাজস্ব আদায়ও কমে যাবে। অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে এখন সাধারণ মানুষের হাতে টাকা পৌঁছে দিতে হবে। তাদের ক্রয়ক্ষমতা বাড়ানোর উদ্যোগ নিতে হবে।

এসএএস/নচ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...