chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ঈদ পালন

ডেস্ক নিউজ: আজ পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপিত হচ্ছে সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপ-আমেরিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে। আত্মত্যাগের মহিমায় পশু কোরবানি দিচ্ছেন মুসলিমরা।

হিজরি বর্ষপঞ্জিতে শেষ মাস জিলহজের দশম দিনে বর্ণাঢ্য আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় মুসলিমদের দ্বিতীয় বৃহৎ উৎসব ঈদুল আজহা।

তবে করোনাভাইরাস মহামারির কারণে মসজিদে সীমিত পরিসরে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ঈদের নামাজ। ফলে অনেকেই ঈদের নামাজ পড়ছেন নিজ বাড়িতে।

বার্তা সংস্থা এপির প্রতিবেদনে জানানো হয়, এ তালিকায় অন্যতম বিশ্বের সর্ববৃহৎ মুসলিম দেশ ইন্দোনেশিয়া।

এশিয়ার বর্তমান করোনা মহামারির কেন্দ্র হয়েছে উঠেছে ইন্দোনেশিয়া। ছোঁয়াচে রোগটির বিস্তারের জন্য দায়ী করা হচ্ছে দুই মাস আগে পবিত্র ঈদুল ফিতরের ছুটিতে দেশটিতে বিপুলসংখ্যক মানুষের বাড়িতে যাওয়াকে।

হাসপাতালে ধারণক্ষমতার বেশি রোগী, মেডিক্যাল অক্সিজেনের ঘাটতি, চিকিৎসা ছাড়াই বাড়িতে আইসোলেশনে থাকা রোগীদের মৃত্যু বাড়ছে দেশটিতে।

এ অবস্থায় রাজধানী জাকার্তাসহ দেশের প্রায় সব অঞ্চলে কঠোর স্বাস্থ্যবিধির মধ্যে এ বছরের ঈদ উদযাপন চলছে।

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সবচেয়ে বড় মসজিদ জাকার্তার ইস্তিকলাল গ্র্যান্ড মস্কসহ বড় কোনো মসজিদেই ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়। স্থানীয় মসজিদগুলোতেও স্বল্প পরিসরে নামাজের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ইরাক, ইরান, সিরিয়া, তুরস্ক, মালয়েশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডাসহ বেশির ভাগ দেশে সামাজিক দূরত্ব মেনে সীমিত পরিসরে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।
ঈদ উপলক্ষে মুসলিমদের প্রতি শুভেচ্ছা বার্তা দিয়েছেন সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আব্দুল আজিজ, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো, যুক্তরাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনসহ বিভিন্ন দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানরা।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে গত ১০ জুলাই সৌদি আরবের সুপ্রিম কোর্ট ২০ জুলাই ঈদুল আজহার তারিখ ঘোষণা করে। সৌদি আরবের সঙ্গে মিলিয়েই ঈদ উদযাপিত হয় প্রায় সব দেশে।

সোমবার জিলহজ মাসের নবম দিনে আরাফাত ময়দানে সম্পন্ন হয়েছে মুসলিম বিশ্বের সর্ববৃহৎ মিলনমেলা পবিত্র হজের মূল আনুষ্ঠানিকতা। নিয়ম অনুসারে পরদিন জামারাতে শয়তানের প্রতীকে পাথর ছুড়ে, তারপর পশু কোরবানি করে ঈদ উদযাপন করেন হাজিরা এবং সেই সঙ্গে সৌদি আরবসহ বেশির ভাগ মুসলিম দেশ।

তবে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানসহ কয়েকটি দেশে ঐতিহ্য অনুযায়ী ঈদ অনুষ্ঠিত হবে এক দিন পর।

এসএএস/নচ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...