chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

এ কেমন প্রতিশোধ !

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাউজান উপজেলার ২ নং ডাবুয়া ইউনিয়নের কলমপতি গ্রামের দরিদ্র কৃষক সেলিম উদ্দিন ধান ও সবজি ক্ষেতের চাষাবাদ করে জীবিকা নির্বাহ করে। কৃষক সেলিম তার বাড়ীর উত্তর পাশে ৮ শতক জমিতে অনেক কষ্ট করে বরবটি ক্ষেতের চাষাবাদ করে। সেই বরবটি ক্ষেতে বরবটির ফলন এসেছে।

আজ শনিবার (১০ জুলাই) ভোররাতে দুর্বৃত্তরা সেই ক্ষেতে প্রবেশ করে বরবটি গাছ কেটে ফেলে দেয়, বরবটি গাছের লতা গুলো উপছে ফেলে দেয়।

শনিবার সকালে কৃষক সেলিম তার বরবটি ক্ষেত দেখতে গেলে বরবটি ক্ষেত উপছে পাড়া দেখে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

কৃষক সেলিম বলেন, গত কয়েকদিন পূর্বে প্রতিবেশী হাসানবানুর গরু আসকর চৌধুরী জামে মসজিদের আঙ্গিনায় রোপণ করা ফলজ গাছের চারা ও আমার বরবটি ক্ষেতের বরবটি খেলে হাসানবানুকে ডেকে ক্ষেত ও ফলজ গাছের চারা খাওয়ার বিষয়ে বলার সময়ে হাসানবানুর পুত্র মুছা হাতে বাশের লাঠি নিয়ে আমাকে মারার জন্য আসেন।

এসময়ে এলাকার লোকজন এসে আমাকে মুছার লাঠির আঘাত থেকে রক্ষা করে।

এ ঘটনার পর হাসান বানু বাদী হয়ে কৃষক সেলিমের বিরুদ্ধে ডাবুয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবরে হাসানবানু ও তার ছেলে মুছাকে মারধর করে বলে অভিযোগ করেন। হাসান বানুর অভিযোগের পরিপেক্ষিতে ডাবুয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুল রহমান চৌধুরী নোটিশ দিয়ে কৃষক সেলিমকে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে উপস্থিত হতে নির্দেশ দিলে কৃষক সেলিম ইউনিয়ন পরিষদে উপস্থিত হয়। তবে অভিযোগকারী হাসান বানু উপস্থিত হয়নি।

কৃষক সেলিম অভিযোগ করে বলেন, হাসান বানু ও তার ছেলে মুছা রাতেই আমার বরবটি ক্ষেত উপছে ফেলে দিয়েছে। কৃষক সেলিম তার বরবটি ক্ষেত উপছে ফেলার বিষয়ে চেয়ারম্যান আবদুল রহমান চৌধুরী, স্থানীয় মেম্বার ওবাইদুল হক চৌধুরী মাহমুদসহ এলাকার মানুষের কাছে তিনি এই অভিযোগ দেন।

এসএএস/এএমএস/চখ

Loading...