chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস কি ?

সুরক্ষিত থাকার উপায়

লাইফস্টাইল ডেস্ক : মিউকরমিকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাস নামে সম্প্রতি করোনার নতুন একটি ভ্যারিয়েন্ট দেখা দিয়েছে। ভারতের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যের পাশাপাশি বাংলাদেশেও কারও কারও মধ্যে এ রোগ সংক্রমিত হচ্ছে।

জানা গেছে, করোনা থেকে সেরে ওঠা রোগীরাই এ রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ব্ল্যাক ফাঙ্গাস রোগকে বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণা করেছে। প্রাণঘাতী এ ভ্যারিয়েন্ট থেকে সুরক্ষার উপায় –

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস কী?

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস একটি জটিল রোগ। গুটিকয়েক মানুষের এ রোগ হয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাধারণত যাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম তাদের ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সংক্রমণের ঝুঁকি থাকে। পাশের দেশ ভারতের প্রায় ২২ টি অঙ্গরাজ্যে করোনা থেকে সেরে ওঠা রোগীরা এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। চিকিৎসকরা বলছেন, ব্ল্যাক ফাংগাস শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট করে দেয়।

কীভাবে বুঝবো ব্ল্যাক ফাঙ্গাস হয়েছে?

কারও কারও মধ্যে জ্বর এবং চোখ বা নাকে ভীষণ যন্ত্রণা, মাথা ব্যথা, কফ, শ্বাসকষ্ট, রক্তবমি ও অবসাদগ্রস্ততা দেখা দেয়। এসব উপসর্গ দেখা দিলে বুঝবেন রোগী ব্ল্যাক ফাংগাস হওয়ার প্রাথমিক ধাপে রয়েছেন। এছাড়াও ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সুনির্দিষ্ট কিছু উপসর্গ রয়েছে-

১. সিনাস্টিস- নাক বন্ধ হয়ে যাওয়া, নাক দিয়ে রক্ত পড়া।

২. গাল বা মুখে ব্যথা।

৩. দাঁত ক্ষয় হওয়া।

৪. শরীরের রং বদলে যাওয়া।

৫. ভীষণ যন্ত্রণা।

৬. বুকে ব্যথা।

যদিও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, এসব উপসর্গ দেখা দিলেই ব্ল্যাক ফাঙ্গাস হয়েছে, এমনটি নাও হতে পারে। তবে এসব উপসর্গ দেখা দিলে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি।

চিকিৎসকরা কী বলছেন?

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস থেকে সুরক্ষা পেতে ডায়েবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। সেই সঙ্গে মাদক থেকে দূরে থাকতে হবে। এ রোগে আক্রান্ত হলে চার থেকে ছয় সপ্তাহ চিকিৎসার প্রয়োজন হয়। বিশেষজ্ঞরা বলেন, ব্ল্যাক ফাঙ্গাস থেকে সুরক্ষা পেতে হাইপারগ্লাইসেমিয়া এবং রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা কমিয়ে আনা জরুরি। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ সেবন করতে হবে।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস থেকে সুরক্ষার উপায়

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস সাধারণ কোনো রোগ নয়। সাধারণত রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী নয় এমন মানুষ এ রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভ্যাস ও শরীরের পর্যাপ্ত ইনসুলিনের অভাবেও রোগটি হয়ে থাকে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ রোগে আক্রান্ত হলে সবসময় মাস্ক পরে থাকতে হবে। ফুল-হাতা শার্ট, হ্যান্ড-গ্ল্যাভস, ফুল-প্যান্ট বা পায়জামা ও জুতা পরে থাকতে হবে। ব্ল্যাক ফাঙ্গাস আক্রান্ত রোগীকে অবশ্যই আলাদা ঘরে থাকতে হবে।

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...