chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

টিকার দ্বিতীয় ডোজ পাওয়া নিয়ে অনিশ্চিয়তায় চট্টগ্রামের লক্ষাধিক মানুষ

চট্টগ্রাম বিভাগে ঘাটতি ৪ লক্ষাধিক

নিজস্ব প্রতিবেদক : চট্টগ্রামে করোনা টিকার দ্বিতীয় ডোজ পাওয়া নিয়ে অনিশ্চিয়তায় রয়েছেন লক্ষাধিক মানুষ। এ ছাড়া প্রথম ডোজের জন্য আবেদন করেও টিকা পাননি লক্ষাধিক মানুষ।

অন্যদিকে চট্টগ্রাম বিভাগের ১১ জেলায় টিকার ঘাটতি রয়েছে প্রায় ৪ লাখ ২০ হাজার ডোজ।

আজ বৃহস্পতিবার (০৬ মে) চট্টগ্রাম বিভাগের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি চট্টলার খবরকে বলেন, চট্টগ্রাম জেলায় করোনা ভাইরাস টিকার প্রথম ডোজের জন্য আবেদন পড়েছে ৫ লাখ ৪২ হাজারের বেশি। এরমধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৪ লাখ ৫৩ হাজার ৪৬০ জন মানুষ।

চট্টগ্রামে সাড়ে ৪ লাখ প্রথম ডোজ গ্রহীতাদের মধ্যে এ পর্যন্ত দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেছেন ২ লাখ হাজার ২ জন।

চট্টগ্রামে এখনো দ্বিতীয় ডোজের জন্য অপেক্ষায় থাকা মানুষের সংখ্যা ১ লাখ ৫৫ হাজার ৪৫৮ জন হলেও টিকা মজুত মজুত আছে প্রায় ৪৭ হাজার ডোজ। আরো ১ লাখ ৮ হাজার ৪৫৮ টিকার ঘাটতি রয়েছে বলে জানান সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি।

তিনি বলেন, আমাদের যতক্ষণ টিকা থাকবে ততক্ষণ দিবো। দৈনিক ৭-৮ হাজার মানুষকে ভ্যাকসিন প্রদান করা হচ্ছে। সে হিসেবে ঈদুল ফিতরের আগ পর্যন্ত চট্টগ্রাম জেলায় টিকা দিতে পারবো।

চট্টগ্রাম বিভাগে দ্বিতীয় ডোজের ঘাটতি ৪ লাখ ২০ হাজার

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর চট্টগ্রামের তথ্য মতে, চট্টগ্রাম বিভাগের ১১টি জেলার মধ্যে করোনা টিকার জন্য আবেদন পড়েছে ১৪ লাখ ৩১ হাজার ৬০৮টি। এর মধ্যে প্রথম ডোজ পেয়েছেন ১১ লাখ ৩৮ হাজার ২৩০ জন।

গতকাল বুধবার (৫ মে) চট্টগ্রাম বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেছেন ৫ লাখ ১৭ হাজার ১১৪ জন। চট্টগ্রামে দ্বিতীয় ডোজের জন্য অপেক্ষমান থাকা মানুষের সংখ্যা ৬ লাখ ২১ হাজার ১১৬ জন হলেও এর বিপরীতে মজুত রয়েছে ২ লাখ ১ হাজার ৩১৪ টিকা। সে হিসেবে দ্বিতীয় ডোজ পাওয়া নিয়ে অনিশ্চিয়তা রয়েছেন ৪ লাখ ১৯ হাজার ৮০২ জন মানুষ।

চট্টগ্রাম বিভাগের পরিচালক স্বাস্থ্য ডা. হাসান শাহারিয়ার কবীর চট্টলার খবরকে বলেন, চট্টগ্রাম বিভাগের মধ্যে করোনা টিকার জন্য সবচেয়ে বেশি আবেদন পড়ে চট্টগ্রাম জেলায়।

গত ৭ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামে করোনা টিকার প্রথম ডোজ প্রদানের কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়।

এসএএস/এমআই/চখ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...