chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ, ভারতে ড্রাগ ও অক্সিজেন জন্য চরম হাহাকার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে যখন প্রতিদিনই নতুন রেকর্ড গড়ছে ভারত, তখন দেশটিজুড়ে চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় দুটি জিনিসের জন্য হাহাকার চরমে পৌঁছেছে। আর এই দুটো জিনিস হল, রেমডেসিভির ড্রাগ আর মেডিক্যাল অক্সিজেন।

রেমডেসিভির জোগাড় করার জন্য রোগীর পরিজনরা হন্যে হয়ে ঘুরছেন। সরকার এই ওষুধটির দাম বেঁধে দিয়েও চাহিদা কুলিয়ে উঠতে পারছে না।

অন্যদিকে কোভিড রোগীদের জন্য অক্সিজেনের জোগান দিতে গিয়ে হাসপাতালগুলো অক্সিজেন পেতে হিমশিম খাচ্ছে। বহু কোভিড রোগী শুধুই অক্সিজেনের অভাবে মারা যাচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠছে।

বস্তুত কোভিড রোগীর পরিজনরা একটা প্রেসক্রিপশন নিয়ে রেমডেসিভির জোগাড় করার জন্য ঘন্টার পর ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন কিংবা অক্মিজেন সিলিন্ডার পেতে জুতোর শুখতলা ক্ষয় করে ফেলেও রোগীকে বাঁচাতে পারছেন না- এই মর্মান্তিক দৃশ্যগুলোই এখন ভারতে সেকেন্ড ওয়েভের ‘ডিফাইনিং ইমেজ’ বা নির্ণায়ক ছবি হয়ে উঠেছে।

মুম্বাইতে একাধিক কোভিড হাসপাতালের পরিচালক আফজাল শেখ বলেছেন, রেমডেসিভির এর তীব্র আকাল চলছে। বড় হাসপাতালগুলো কোনোক্রমে পেলেও ছোট হাসপাতালে রেমডেসিভির নেই, সেখানে ভর্তি রোগীর আত্মীয়স্বজনরা রাস্তায় দিশেহারা হয়ে ঘুরছেন।

কলকাতার সুপরিচিত চিকিৎসক দ্বৈপায়ন ঘটক বলছিলেন, এই ওষুধটি কতটা কার্যকরী তা একশোভাগ নিশ্চিত না-হলেও রোগীরাই কিন্তু এটি প্রেসক্রাইব করার জন্য ডাক্তারদের জোরাজুরি করছেন।

আক্রান্ত রোগীদের রেমডেসিভির দেওয়ার জন্য চিকিৎসকদের ওপর চাপ আসছে, অনেক ক্ষেত্রে তারা লিখছেনও। ফলে এই ওষুধ বা ইনজেকশনটির চাহিদাও হু হু করে বাড়ছে।

এই বহুল আলোচিত ওষুধটি ছাড়াও আর একটি পরিচিত ও সাধারণ চিকিৎসা সরঞ্জাম এখন চাহিদার তুঙ্গে – সেটি হল অক্সিজেন।

গুজরাটে সুরাট সিভিল হাসপাতালের ড. পারুল ভাডগামা বলছিলেন, গত বছরের তুলনায় এবার কোভিড রোগীদের অক্সিজেনের চাহিদা অন্তত পাঁচগুণ বেশি। ওপিডি-তে যে রোগীরা আসছেন তাদের নব্বই শতাংশই আসছেন স্ট্রেচারে করে – আর তাদের সবারই অক্সিজেন প্রয়োজন হচ্ছে।

এভাবেই আরও ভয়ঙ্কর করে তুলেছে রেমডেসিভির আর অক্সিজেনের তীব্র আকাল দ্বিতীয় ধাক্কার কোভিড ‘সুনামি’ ভারতে। সূত্র : বিবিসি

এএমএস/চখ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...