chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

হাঁসের ডাক শুনে ঘুম থেকে উঠে দেখেন সব পুড়ে ছাই

নিজস্ব প্রতিবেদক : ফটিকছড়ির লেলাং ইউনিয়নের চম্পাতলী এলাকার নাজির আলী সওদাগর বাড়িতে প্রতিদিনের মতো খাওয়া দাওয়া সেরে মায়ের সাথে ঘুমাচ্ছিলেন মেয়ে ফারজানা ইয়াছমিন কলি।

রাত আনুমানিক সাড়ে ৩ টার সময় হাঁসের ডাক শুনে তার ঘুম ভেঙ্গে যায়। প্রথমে ঘরের পেছনে কেউ ছিল বলে মনে হলেও পরে আবার সে ঘুমিয়ে যায়। অল্প কিছুক্ষণ পর গরম ভাব অনুভব হতে চোখ খুলে দেখেন চারদিকে আগুন জ্বলছে।

কোনমতে প্রাণ নিয়ে মা মেয়ে দুজনই ঘর থেকে বের হতে পারলেও আগুনের ছোবল থেকে রক্ষা করতে পারেননি তাদের কাঁচা বসতঘরটি।

সোমবার (১ মার্চ) আনুমানিক ভোর ৪ টার সময় আছমার বাপের বাড়িতে মাহাবুবুল আলমের কাঁচা ঘরে অগ্নিকান্ড ঘটে। আগুনের ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে উপরোক্ত কথাগুলো প্রতিবেদকের কাছে তুলে ধরেন মাহাবুবুল আলমের মেয়ে ফারজানা।

মাহাবুবুল আলম বলেন, অগ্নিকান্ডে আমার ঘরের আসবাবপত্র, আমার ২ মেয়ে ও স্ত্রীর প্রায় ৩৫ ভরি স্বর্ণালংকার, একটি টিভিএস মোটর সাইকেল, পার্সপোর্ট, গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট, নগদ টাকাসহ সব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

আমার ছেলের অপারেশন হয়েছে গতকাল, আমি ও আমার বড় ছেলে শহরে ছিলাম। ঘরে কোন পুরুষ ছিল না, এই সুযোগে পূর্ব শত্রুতার জেরে এ ঘটনা কেউ ঘটিয়ে থাকতে পারে বলে তিনি ধারণা করছেন।

এ ঘটনায় তার পরিবার এখন নিঃস্ব হয়ে গেছে উল্লেখ করে প্রায় ৫০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানান ক্ষতিগ্রস্ত মাহাবুবুল আলম। তিনি স্থানীয় চেয়ারম্যানের সাথে পরামর্শ করে আইনানুগ ব্যবস্থা নিবেন বলেও জানিয়েছেন।

আরএস/এমআই

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...