chattolarkhabor
চট্টলার খবর - খবরের সাথে সারাক্ষণ

নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হবে: রিটার্নিং অফিসার

নিজস্ব প্রতিবেদক: চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হবে আশ্বস্ত করে কেন্দ্রে গিয়ে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে ভোটারদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ হাসানুজ্জামান।

আজ মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি)দুপুরে এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেসিয়ামে ভোটের সরঞ্জাম বিতরণের সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ আশ্বাস দেন।

চসিক মেয়র পদে সাতজন এবং ৩৯টি সাধারণ ও ১৪টি সংরক্ষিত আসনের বিপরীতে ২২৫ জন প্রার্থীর মধ্যে বুধবার ভোটের লড়াই হবে বন্দর নগরীতে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে প্রায় ১০ মাস পিছিয়ে অনুষ্ঠিতব্য এই নির্বাচনে ইতোমধ্যে সংঘাতে প্রাণ গেছে দুজনের। কাউন্সিলর প্রার্থীদের নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর, প্রচারণায় হামলাসহ বেশকিছু ঘটনা ঘটেছে।

৭৩৫ টি কেন্দ্রের মধ্যে ৪১৯টিকে গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র বলে জানিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা, যা মোট কেন্দ্রের ৫৬ শতাংশ।

নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে জানতে চাইলে রিটার্নিং অফিসার বলেন, নগরবাসীকে এবং সিটির সম্মানিত ভোটারদের আমরা আশ্বস্ত করতে চাই, আগামীকালকে একেবারেই তারা শান্তিপূর্ণভাবে ভোট কেন্দ্রে যেতে পারবেন। এবং ভোটকেন্দ্রে গিয়ে তাদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে তারা বাসায় ফিরে আসবে পারবে। সে ধরণের সকল ব্যবস্থা আমরা গ্রহণ করেছি। আগামীকালকে একটি উৎসবমুখর পরিবেশে এই সিটি নির্বাচনটি অনুষ্ঠিত হবে।

নির্বাচন উপলক্ষে পুরো সিটিতে পুলিশের ৭ হাজার ৭৭২ জন, আনসারের প্রায় ৩ হাজার ৮০০ সদস্য, ২৫ প্লাটুন বিজিবি, র্যাবের ৪১টি দল ছাড়াও স্ট্রাইকিং ফোর্স, রিজার্ভ ফোর্স ও মোবাইল টিম দায়িত্ব পালন করবে।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনটি এই প্রথমবারের মত সকল কেন্দ্রে ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এবারই প্রথম দলীয়ভাবে মেয়র প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা এম রেজাউল করিম চৌধুরী এবং বিএনপির ধানের শীষের মেয়র প্রার্থী নগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন।

চসিক নির্বাচনে এবার ভোটার ১৯ লাখ ৩৮ হাজার ৭০৬ জন; পুরুষ ৯ লাখ ৯২ হাজার ৩৩, নারী ৯ লাখ ৪৬ হাজার ৬৭৩। ৭৩৫টি কেন্দ্রে মোট ভোটগ্রহণ কক্ষের সংখ্যা চার হজার ৮৮৬টি। ২৫ প্লাটুন বিজিবির পাশাপাশি ভোটে দায়িত্ব পালন করবে প্রতিটি ওয়ার্ডে র্যাব ও পুলিশের একটি করে টিম।

ভোট গ্রহণে ৭৩৫ প্রিসাইডিং, ১৪৭০ সহকারী প্রিসাইডিং আর ২৯৪০ জন পোলিং অফিসার থাকবে।

নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডের মধ্যে একটিতে সাধারণ কাউন্সিলর পদে একজন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হয়েছেন। অন্য একটিতে একজন কাউন্সিলর প্রার্থীর মৃত্যুতে সেটির ভোট স্থগিত হয়েছে। তাই ৩৯ টি সাধারণ ওয়ার্ডে ভোটগ্রহণ হবে।

এ ছাড়া মোবাইল টিম থাকবে ৪১০টি। স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে থাকবে ১৪০টি দল। ২০ জন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এবং ৭৯ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ভোটের দায়িত্ব পালন করবেন। সোমবার মধ্যরাতে নির্বাচনের প্রচারণা শেষ হয়েছে। বুধবার সকাল আটটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলবে।

এসএএস/নচ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...