মাদারবাড়ীতে সড়কও দোকানিদের দখলে

রাস্তা ও ফুটপাতে লোহার পাইপ

ছবি প্রতিবেদক : দোকানের সামনে ফুটপাত। এরপর নালা। নালার ওপরে স্ল্যাব বসানো। সব মিলিয়ে প্রশস্ততা প্রায় দশ ফুটের। এরপরও হাঁটার কোনো উপায় নেই। পুরো ফুটপাত জুড়ে সাজিয়ে রাখা হয়েছে লোহার পাইপ ও নানা রকমের যন্ত্রপাতি। কিছু কিছু জায়গায় ফুটপাত ছাড়িয়ে রাস্তার কিছু অংশও দখলে চলে গেছে তাঁদের। আবার কোথাও কোথাও কাভার্ডভ্যান ও ট্রাক দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। আজ রবিবার এই চিত্র দেখা যায় চট্টগ্রাম নগরীর ঢাকা ট্রাঙ্ক রোডের পশ্চিম মাদারবাড়ী এলাকায়।

মাদারবাড়ীতে সড়কও পাইপ বিক্রির দোকানের দখলে

এলাকার প্রায় এক কিলোমিটার অংশে সড়ক ও ফুটপাতের ওপর এমন ‘নৈরাজ্যকর’ পরিস্থিতি বিরাজ করছে। এ অবস্থার কারণে সেখানে সাধারণ মানুষের হাঁটাচলা থেকে শুরু করে যান চলাচলে অসুবিধা হচ্ছে। দীর্ঘ দিন ধরে চলে আসা এ দৃশ্যের পরিবর্তনের কোনও উদ্যোগ নেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোর।

মাদারবাড়ীতে সড়কও পাইপ বিক্রির দোকানের দখলে

এলাকাবাসীদের অভিযোগ, ফুটপাত ও রাস্তার ওপর লোহার যন্ত্রপাতি রাখায় সেখানে এক নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। এতে তাঁদের হাঁটাচলা ও যাতায়াতে সমস্যা হচ্ছে। এই সড়কে কাভার্ডভ্যান আর ট্রাকের মতো সব ভারী যানবাহন চলাচল করে। ফুটপাত দখল হয়ে যাওয়ায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাস্তায় চলতে হয়।

মাদারবাড়ীতে সড়কও পাইপ বিক্রির দোকানের দখলে

পশ্চিম মাদারবাড়ী এলাকার বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ফুটপাত ও রাস্তা দখল করে রাখায় গাড়ি চলতে পারে না। লোকজনও হাঁটতে পারে না। মানুষের কষ্টের শেষ নেই। পুলিশকে বলেও এর কোনো সুরাহা হয়নি । দোকানিরাও কথা শোনেন না।

মাদারবাড়ীতে সড়কও পাইপ বিক্রির দোকানের দখলে

ব্যবসায়ীরা জানান, ওই এলাকায় প্রায় ১২০টি লোহা-লক্কড় ও মেশিনের দোকান রয়েছে। নগরীর সাগরিকা ও সীতাকুণ্ডের শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ড থেকে এসব লোহার যন্ত্রপাতি ও মেশিন সংগ্রহ করেন তাঁরা। তা বিক্রির জন্য মাদারবাড়ী এলাকায় নিয়ে আসেন। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে লোকজন এসব জিনিস কিনতে আসেন। এ ছাড়া মাদারবাড়ী-সংলগ্ন মাঝির ঘাট এলাকায় বিভিন্ন গুদাম রয়েছে। এসব গুদাম থেকে পণ্য নিতে আসা ট্রাক ও কাভার্ডভ্যানগুলোও ডিটি রোডের ওপর দাঁড়িয়ে থাকে।

এসএএস/চখ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...