‘বাংলাদেশকে আশার আলো দেখিয়েছেন শেখ হাসিনা’

ডেস্ক নিউজ: শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, পিতাহীন বাংলাদেশ ছিল সমুদ্রে ভাসমান নাবিকবিহীন জাহাজ। বাংলাদেশ পরিণত হয়েছিল মৃত্যু উপত্যকায়। ঠিক তখনই ছয় বছরের নির্বাসিত জীবনের অবসান ঘটিয়ে ১৯৮১ সালে জাতির পিতার কন্যা শেখ হাসিনা বাংলাদেশে এসে আবার বাংলাদেশকে আশার আলো দেখিয়েছেন।

গতকাল সোমবার রাজধানী ধানমন্ডির প্রিয়াঙ্কা কমিউনিটি সেন্টারে মহিলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন উদযাপন উপলক্ষে দুস্থ নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মহিলা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি মাহমুদা কৃকের সঞ্চালনায় এবং মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী সাফিয়া খাতুনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সাবেক প্রতিমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের শুধু একটি স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ উপহার দেননি তিনি আমাদের দিয়েছেন আত্মপরিচয় ও ভাষার অধিকার। শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের উত্তরাধিকার।

‘পাকিস্তানের স্বৈরশাসকের অত্যাচার, নির্যাতন, নিপীড়ন, শোষণ ও বঞ্চনা থেকে মুক্ত হয়ে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ যখন ঘুরে দাঁড়াচ্ছিল ঠিক তখনই ’৭৫ এর ১৫ আগস্ট পাকিস্তানের দোসররা বঙ্গবন্ধুকে নির্মমভাবে হত্যা করে।

ডা. দীপু মনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা শুধু বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরাধিকার নয়, তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের উত্তরাধিকার। তার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আবার এগিয়ে যেতে শুরু করে। বিশ্বে যখনই নারীর ক্ষমতায়ন, জলবায়ু পরিবর্তন ও দারিদ্র্য বিমোচন নিয়ে আলোচনা হয় তখনই আলোচনায় চলে আসেন শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশের নাম। বাংলাদেশের যত অর্জন তার পেছনে রয়েছে এক পিতা ও তার কন্যার অবদান।’

তিনি বলেন, ‘চিরদিনের খাদ্যঘাটতির দেশ আজ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে খাদ্য উদ্বৃত্তের দেশে পরিণত হয়েছে।’

শেখ হাসিনাকে জানতে বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার রচিত বইগুলো পড়ার জন্য নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান শিক্ষামন্ত্রী।

এমআই/

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...