সুশাসনের জন্য তথ্য অধিকার নিশ্চিত করতে হবে: বিভাগীয় কমিশনার

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার এবিএম আজাদ বলেছেন, তথ্য পাওয়া সকল নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার। এ অধিকার পাওয়ার ক্ষেত্রে সামাজিক ও অর্থনৈতিকসহ অনেক প্রেক্ষাপট জড়িত।  তথ্য অধিকার নিশ্চিত করা গেলে দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হবে। করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) পরিস্থিতির কারণে দেশে ক্রান্তিকাল চলমান থাকলেও প্রত্যেক নাগরিকের ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ১১টায় আর্ন্তজাতিক তথ্য অধিকার দিবস-২০২০ উদযাপন উপলক্ষে জুম অ্যাপের মাধ্যমে আয়োজিত ভার্চুয়াল সিম্পোজিয়ামে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বিভাগীয় কমিশনার বলেন, সরকারের মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ থেকে বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে তথ্য অধিকার আইন বাস্তবায়নে কমিটি করে দেয়া হয়েছে। আগামীতে ইউনিয়ন পর্যায়েও কমিটি করা হবে।  সেখানে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে জনগণের চাহিদামত তথ্য আদান-প্রদান করছে কি না তা কমিটির প্রধানগনকে নিয়মিত মনিটরিং করতে হবে।  তাহলে এ আইন আরো বেশি কার্যকর হবে।  জনগণের চাহিদামত তথ্য প্রদানে গড়িমসি করলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে জবাবদিহিতার আওতায় আসতে হবে।  আবার যেসব তথ্য প্রদান করলে রাষ্ট্র বা সরকারের জন্য ক্ষতিকর বা হুমকি হবে সে সব তথ্য দেয়া যাবেনা।  জনগণকে কোন কোন ধরনের তথ্য দেয়া যাবেনা বা কেন দেয়া যাবে না তা কারণসহ জানিয়ে দেবেন ঐ কর্মকর্তা।  জনগণ যাতে আইনটি সম্পর্কে জানে সেজন্য প্রচার-প্রচারণা ও সচেনতার বিকল্প নেই।

বিভাগীয় কমিশনার আরো বলেন, তথ্য অধিকার আইন বাস্তবায়নে গণমাধ্যমের প্রতিনিধিদের ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।  কিছু কিছু ব্যক্তি ফেসবুক, ইউটিউব ও অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার চালিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করে।  তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে।

সিম্পোজিয়ামে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সহিদ উল্লাহ। অন্যান্যের মধ্যে অংশ নেন ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির ভিসি প্রফেসর সেকান্দর হায়াত খান, বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীর, পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের পরিচালক মোয়াজ্জম হোসাইন, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী মো. শাব্বির ইকবাল, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) যুগ্ম মহাসচিব মহসীন কাজী ও সিএমপি’র কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের (সিটিইউ) উপ-পুলিশ কমিশনার হামিদুল হক।

 

 

 

 

 

Loading...