শেষ পর্যন্ত স্থগিতই হলো শ্রীলঙ্কা সফর

খেলা ডেস্ক: অবশেষে অনিশ্চয়তার অবসান হলো। শ্রীলঙ্কা সফরে যাচ্ছে না টাইগাররা। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেছেন, শ্রীলঙ্কার শর্ত মেনে এ মুহূর্তে বাংলাদেশের পক্ষে তিন টেস্টের সিরিজ খেলতে যাওয়া সম্ভব নয়। পাশাপাশি লঙ্কান বোর্ডকে নতুন সূচি তৈরির অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিয়েছে বিসিবি।

প্রধানমন্ত্রী ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার জন্মদিনের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে আজ বিসিবিতে গিয়ে বোর্ড কর্তাদের সঙ্গে বসেন বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। সেখানে বোর্ড পরিচালকদের নিয়ে অনির্ধারিত বৈঠক করেন বিসিবি বস। যেখানে বোর্ডের প্রায় সব পরিচালকই উপস্থিত ছিলেন।

শ্রীলঙ্কায় কোয়ারেন্টাইন ইস্যুতে দুই বোর্ডের আলোচনা হয়েছে লম্বা সময় ধরে। বাংলাদেশ এক সপ্তাহের বেশি কোয়ারেন্টাইনে থাকতে চায়নি। আবার শ্রীলঙ্কার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ অনুযায়ী- ১৪ দিনের কম কোয়ারেন্টাইন সম্ভব নয়। এই ১৪ দিনে পুরোপুরি আবদ্ধ থাকতে হবে দলকে, করা যাবে না অনুশীলনও।

মূলত এ কারণেই বিসিবি শ্রীলঙ্কা সফর স্থগিতের জন্য বলেছে এসএলসিকে।

পাপন বলেন, ‘ওরা যে গাইডলাইন দিয়েছে এই গাইডলাইনে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ খেলা সম্ভব নয়। ওদের বোর্ড ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় অনেক চেষ্টা করেছে। আমাদের শর্ত আমরা পাঠিয়েছিলাম। একটি ছাড়া বাকি সব শর্ত মানতে পারবে বলে আশ্বস্ত করেছে। কিন্তু যে জিনিসটা মেনে নেয়নি, সেটাই আসল। সেটা ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন।’

অন্যান্য ক্রিকেটীয় সফরে কোয়ারেন্টাইন চলাকালে অনুশীলনের সুবিধা পাচ্ছেন সফরকারী ক্রিকেটাররা। তবে বাংলাদেশ দলের ক্ষেত্রে এমন সুযোগ ছিল না। এখানেই অসন্তোষ ছিল বাংলাদেশের।

বোর্ড সভাপতি জানান, ‘সাধারণত কোয়ারেন্টাইন ও আইসোলেশন দুইটা দুই জিনিস। কেউ করোনা পজিটিভ হলে আমরা বলি পূর্ণ আইসোলেশনে থাকবে, ঘর থেকে বের হতে পারবে না। ওদের ১৪ দিন আইসোলেশন, যেটাকে ওরা কোয়ারেন্টাইন বলছে। অন্যান্য জায়গার কোয়ারেন্টাইন থেকে এটার অনেক পার্থক্য। ওদেরটা পুরোপুরি আইসোলেশন। ঘর থেকে বেরোনো সম্ভব নয়।’

পাপনের দাবি, এমন ‘কোয়ারেন্টাইন’ ক্রিকেটারদের মানসিকতায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

তিনি বলেন, ‘এই ১৪ দিন বিচ্ছিন্ন থাকলে শারীরিক দিক বাদ দিলাম, মানসিক যে অবস্থা হবে সেটা ঠিক করতেই তো অনেক সময় লাগবে। এটা শুধু আমাদের জন্যই না। সেই দেশের সব সফরকারীদের জন্যই। একেক দেশের একেক আইন। ওদের দেশে এটাই আইন।’

তিনটি টেস্ট খেলার জন্য গত জুলাইয়ে শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশ জাতীয় দলের। তবে সেই সময়ে মহামারি করোনার কারণে স্থবির ছিল গোটা বিশ্ব। শ্রীলঙ্কা করোনা মোকাবেলায় অনেকটা সক্ষম হওয়ায় দেশে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরানোর নিমিত্তে বাংলাদেশকে ফের সফরের প্রস্তাব করে।

সেই প্রস্তাবে প্রথমে রাজিও হয়েছিল বিসিবি। প্রস্তাবনা অনুযায়ী, আগামী ২৩ অক্টোবর থেকে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা ও সফরকারী বাংলাদেশের মধ্যকার তিন ম্যাচ টেস্ট সিরিজ শুরুর কথা ছিল। তবে কোয়ারেন্টাইনের কড়াকড়ি আর বাধ্যবাধকতার কারণে বাংলাদেশ দলের শ্রীলঙ্কা সফর আরও এক দফা স্থগিতাদেশ পেল।

এমআই/

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...