করোনা আতঙ্কে হজম করতে হলো ৩৭ গোল!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: করোনা আতঙ্কে মানুষ সামাজিক দূরত্ব মেনে চলাটাই স্বাভাবিক। কিন্তু তাই বলে ৩৭ গোল হজম! এমন কাণ্ড ঘটেছে জার্মানিতে।

বিপক্ষ দলের ফুটবলার কোভিড আক্রান্ত—এই ভয়ে ম্যাচ চলাকালীনই সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেছিলেন জার্মান দলের ফুটবলাররা। বিপক্ষ দলের খেলোয়াড় যখন বল নিয়ে এগোচ্ছে তখন কেউ ট্যাকল করতেও এগিয়ে যাননি। যার জেরে ওই স্থানীয় ফুটবল প্রতিযোগিতার ম্যাচে রিপফোর্ড তাদের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর কাছে হেরেছে ৩৭-০ গোলে।

জার্মান ফুটবল লিগের ১১ টায়ারে খেলে এসজি রিপফোর্ড ও এসভি হলডেনস্টিড। আগের ম্যাচে হলডেনস্টিডের ফুটবলাররা যে দলের সঙ্গে খেলেছিল সেই দলে এক খেলোয়াড়ের কোভিড রিপোর্ট পজিটিভ এসেছিল। এটাই ছিল রিপফোর্ডের ভয়ের কারণ।

যদিও এই ম্যাচের আগে হলডেনস্টিডের সব ফুটবলারের কোভিড রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছিল। তবুও রিপফোর্ড ক্লাব কর্তৃপক্ষ বিষয়টিতে নিরাপদ বোধ করেননি।

রিপোফোর্ডের কো-চেয়্যারম্যান প্যাট্রিক রিসটো এ ব্যাপারে সিএনএনকে বলেছেন, ‘‘আগের ম্যাচে হলডেনস্টেডরে খেলোয়াড়রা কোভিড আক্রান্তের সংস্পর্শে এসেছিলেন। তাই আমরা নিরাপদ বোধ করিনি। বিষয়টি নিয়ে চিন্তায় ছিলাম।’’

এই কারণ দেখিয়ে ম্যাচটি খেলতেই চাইনি রিপফোর্ড। ম্যাচ পিছিয়ে দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছিল। কিন্তু হলডেনস্টেড দল জানিয়ে দেয় তাদের ফুটবলাররা সুস্থ। তাই ম্যাচ পিছনোর আবেদন খারিজ হয়ে যায়।

এই পরিস্থিতিতে ম্যাচ না খেললে জরিমানার মুখে পড়ত হত রিপফোর্ডকে। প্রায় ২০০ ইউরো (ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ১৭ হাজার টাকা) ফাইন হতো তাদের। সেই জরিমানা এড়ানোর জন্যই হলডেনস্টেডের বিরুদ্ধে ম্যাচে সাত জনের দল নামিয়েছিল তারা। সাত জন ফুটবলারও বিপক্ষের ফুটবলারদের থেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে খেলা চালিয়ে যাচ্ছিল।

এর জেরে যা হওয়ার তাই হয়েছে। ফুটবলের মতো বডি কন্ট্যাক্ট খেলায় দূরত্ব বজায় রাখতে গিয়ে একের পর এক গোল খেয়েছে রিপফোর্ড।

প্যাট্রিক রিসটো বলেছেন, ‘‘আমার দলের ফুটবলাররা বিপক্ষের ফুটবলারদের থেকে দু’মিটার দূরত্ব বজায় রেখে গোটা ম্যাচ খেলেছিল। সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং বজায় রেখে কোনও সরাসরি ট্যাকলে যায়নি।’’

এই সব দেখে হলডেনস্টেডের কোচ ফ্লোরিয়ান জানিয়েছেন, ‘‘এই ম্যাচ ঠিক ভাবে না খেলার কোনও কারণই ছিল না। রিপফোর্ড অযথা আতঙ্কিত ছিল।’’

এমআই/

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...