‘ঘরে বসে স্বস্তির পেঁয়াজ’

ডেস্ক নিউজ: গত এক সপ্তাহ ধরে অস্থিরতা বিরাজ করছে পেঁয়াজের বাজারে। এমন সময় মানুষকে স্বস্তি দিতে ‘ঘরে বসে স্বস্তির পেঁয়াজ’ উদ্বোধন করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) অনলাইনে সাশ্রয়ীমূল্যে পেঁয়াজ বিক্রির এ কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়।

পেঁয়াজের দামবৃদ্ধি ঠেকাতে এবং মধ্যবিত্ত শ্রেণির ক্রেতাদের অনলাইনে পেঁয়াজ পেতে এই কর্মসূচি গ্রহণ করেছে সরকার। নির্বাচিত কিছু অনলাইন শপের মাধ্যমে ঘরে বসে সহজেই যে কেউ পেঁয়াজ কিনতে পারবে।

আপাতত ৩৬ টাকা প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। একজন ক্রেতা সর্বোচ্চ ৫ কেজি পেঁয়াজ কিনতে পারবেন। তবে আপাতত এই সীমা ৩ কেজি নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া প্রতিটি অর্ডারের ডেলিভারি মূল্য ঠিক করে দেয়া হয়েছে সর্বোচ্চ ৩০ টাকা।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দীন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন যুগ্মসচিব এএইচএম সফিকুজ্জামান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশী বলেন, ‘এই কর্মসূচির আওতায় অনলাইনে নির্দিষ্ট পরিমাণ পেঁয়াজ কেনা যাবে। একটি পরিবারের জন্য ১ সপ্তাহ কত কেজি পেঁয়াজ লাগে সেভাবে সীমা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। কোথাও কোনো অনিয়ম দেখা দিলে ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) বা সংশ্লিষ্ট সমন্বয় কমিটি দ্রুত সমাধান দেবে।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ডব্লিওটিও সেল এর মহাপরিচালক ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্নসচিব হাফিজুর রহমান বলেন, ‘সরকারের সঙ্গে প্রাইভেট সেক্টরের সহযোগিতার ভিত্তিতে জনগণের কল্যাণের একটা উদাহরণ হয়ে থাকবে ঘরে বসে স্বস্তির পেঁয়াজ নামক এই উদ্যোগ। এর আগেও আমরা এধরনের উদ্যোগে সফলতা পেয়েছি।’

‘সরকারের একটি কল্যাণমূলক সেবা টিসিবি’র পণ্য আরো বেশি মানুষের কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য ই-ক্যাবের সঙ্গে মিলে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ঘরে বসে স্বস্তির পেঁয়াজ কার্যক্রমের উদ্যোগ নিয়েছে।’

টিসিবি’র চেয়ারম্যান বিগ্রেডিয়ার জেনারেল আরিফুল হাসান বলেন, ‘টিসিবি সাধারণত ট্রাকের মাধ্যমে স্বল্প আয়ের মানুষদের নিত্যপণ্য সরবরাহ করে থাকে। কিন্তু অনলাইনশপগুলো থেকে পেঁয়াজ বিক্রয়ের মাধ্যমে যেসব ক্রেতা হয়তো লাইন ধরে পণ্য ক্রয় করেন না, তাদের জন্য এই সুযোগ তৈরি হলো। সরকারের এই সেবা অনলাইনে বিস্তৃতির মাধ্যমে আরো বেশ মানুষকে সংযুক্ত করবে।’

ই-ক্যাবের প্রেসিডেন্ট শমী কায়সার বলেন, ‘আজ আমরা মধ্যবিত্ত মানুষদের জন্য সরকারের সহযোগিতায় অনলাইনে পেঁয়াজ নিয়ে এসেছি। যেসব প্রতিষ্ঠান কাজ করবে তারা প্রত্যেকে আমাদের বলেছে তারা নিয়ম মেনে চলবে। যে বিধিমালা দেয়া হয়েছে তা অনুসরণ করবে এবং ব্যবসার চেয়ে মানুষের সেবাকে গুরুত্ব দেবে।’

অনুষ্ঠানো জানানো হয়, আপাতত ৮টি অনলাইন প্রতিষ্ঠান ঢাকা ও চট্টগ্রামে অনলাইনে পেঁয়াজ বিক্রি করতে পারবে। আজ প্রাথমিকভাবে টিসিবির অনলাইন ডিলারশিপ দেওয়া হয়েছে ৫টি অনলাইন প্রতিষ্ঠানকে।

প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- চালডাল ডটকম, স্বপ্ন অনলাইন, সিন্দাবাদ ডটকম, সবজিবাজার ডটকম, বিডিসোল ডটকম। আগামীকাল থেকে যাচাই ডটকম, একশপ ও অন্য একটি প্রতিষ্ঠান এই ধারাবাহিকতায় যুক্ত হতে পারে। এছাড়া উইন্ডি নামে নারী উদ্যোক্তাদের একটি কমন ফ্লাটফর্ম থেকেও টিসিবি’র পেয়াজ বিক্রি করা হবে। চাহিদা ও যোগানোর ওপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা আরো বাড়বে।

প্রতিটি প্রতিষ্ঠান আপাতত দৈনিক আধাটন করে পেঁয়াজ পাবে এবং তিনদিন পর পর টিসিবি থেকে পেঁয়াজ সংগ্রহ করবে। অনলাইন প্রতিষ্ঠানগুলো ১০ হাজার টন পেয়াজ বিক্রি প্রাথমিক লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে। এর পরিমাণ আরো বাড়তে পারে।

প্রতিষ্ঠানগুলোর গুদামঘর, ডেলিভারি ক্যাপাসিটি, ই-কমার্স ওয়েবসাইট ও ই-ক্যাবের সুপারিশ বিবেচনায় টিসিবির ডিলারশিপ দেয়া হচ্ছে। এছাড়া পুরো প্রক্রিয়া সঠিকভাবে সম্পন্ন করতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, টিসিবি ও ই-ক্যাব একটি অভিন্ন বিধিমালা বা এসওপি প্রণয়ন করেছে। যা মেনে চলতে প্রতিটি প্রতিষ্ঠান বাধ্য থাকবে। বরাদ্দকৃত পেঁয়াজ অনলাইন ব্যতীত অন্যকোনো মাধ্যমে বিক্রয় করতে পারবে না।

এমআই/

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...