ওয়াসার এমডি পদে বিতর্কিতদের পুনঃ নিয়োগ না দেওয়ার আহবান ক্যাব’র

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ঢাকা ও চট্টগ্রাম ওয়াসায় বিতর্কিত ও দুর্নীতি অনিয়মের সাথে জড়িতদের পুনঃনিয়োগ না দেওয়ার আহবান জানিয়েছে  ক্রেতা-ভোক্তাদের প্রতিনিধিত্বকারী প্রতিষ্ঠান কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)

রোববার(২০ সেপ্টেম্বর) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে এ আহবান জানানো হয়।

ঢাকা ও চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক যথাক্রমে তাকসিন এ খান এবং প্রকৌশলী এ কে এম ফজলুল্লাহর বিরুদ্ধে নানা ধরনের দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে উল্লেখ করে  বিবৃতিতে বলা হয়, দুই বর্তমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক ২০০৯ সালে প্রশ্নবিদ্ধ বিতর্কিত নিয়োগের পর টানা পাঁচ মেয়াদে ১১-১২ বছর ধরে দায়িত্ব পালন করছেন। প্রতিবারই নিয়োগ নবায়নের ক্ষেত্রে কোনো না কোনোভাবে আইন ও নীতিমালাকে ব্যত্যয় ঘটিয়েছেন। কিন্তু সংশ্লিষ্ট  মন্ত্রণালয় থেকে পরবর্তী নিয়োগে সতর্কতা অবলম্বনের জন্য পরামর্শ দেয়া হলেও কখনো বয়সসীমা বাড়িয়ে, আবার কখনো বোর্ডের  সভার সুপারিশ পাশ কাটিয়ে পুরনো সভার তামাদি সুপারিশ ব্যবহার করে, এমনকি বোর্ডের মতামত গ্রহণের তোয়াক্কা না করে প্রভাবশালী মহলের যোগসাজশে পুনঃনিয়োগ পেয়েছেন তারা।

আবারও ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটিয়ে বর্তমান দুই ব্যবস্থাপনা পরিচালকের নিয়োগে স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় সংশ্লিষ্ট খাতে যোগ্য, অভিজ্ঞ ও কর্মঠ নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিয়োগ দেবার দাবি জানান ক্যাব নেতারা। একইসঙ্গে এই রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সেবা সংস্থার গ্রাহকদের স্বার্থ সুরক্ষায় বর্তমান এমডিসহ ওয়াসার যাবতীয় নিয়োগ প্রক্রিয়ার বিষয়ে সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ তদন্ত ও নিরীক্ষার দাবি জানান তারা।

উল্লেখ্য, ২০০৯ সালে প্রথম ঢাকা ওয়াসার এমডি হিসেবে নিয়োগ পান প্রকৌশলী তাকসিন এ খান। এরপর চারবার চুক্তির মেয়াদ বাড়িয়েছে ওয়াসা বোর্ড। পঞ্চমদফা চুক্তির সময়সীমা শেষ না হতেই ফের তিন বছরের জন্য মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।

অন্যদিকে,  ৯ বছর ধরে চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালকের (এমডি) পদে দায়িত্ব পালন করছেন প্রকৌশলী একেএম ফজলুল্লাহ। ইতিপূর্বে  ২০১৭ সালের ৩১ অক্টোবর তৃতীয়বারের মতো তিন বছরের জন্য নিয়োগ পান তিনি।

নচ/চখ

 

 

 

 

 

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...