মসজিদে বিস্ফোরণ : তিতাসের ৮ কর্মকর্তা আটক

ডেস্ক নিউজঃ নারায়ণগঞ্জের মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধ আরোও একজনের মৃত্যু হয় আজ সকালে। এ নিয়ে মৃত্যুর  সংখ্যা বেড়ে ৩২ জনে দাঁড়িয়েছে। এ ঘটনার প্রায় ১৬ দিন পর  তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের আট কর্মকর্তা-কর্মচারীকে গ্রেফতার করেছে (সিআইডি)। এর আগে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে গত ৭ সেপ্টেম্বর তাদের বহিষ্কার করে তিতাস কর্তৃপক্ষ। 

শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে নারায়ণগঞ্জ সিআইডি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান সিআইডির ডিআইজি মাইনুল হাসান।

গ্রেফতার আট ব্যক্তি হলেন – নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা অঞ্চলের তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেডের কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, উপব্যবস্থাপক প্রকৌশলী মাহমুদুর রহমান রাব্বী, সহকারী প্রকৌশলী এসএম হাসান শাহরিয়ার, সহকারী প্রকৌশলী মানিক মিয়া, ফতুল্লা অঞ্চলের সিনিয়র সুপারভাইজার মজিবুর রহমান চৌধুরী, সিনিয়র উন্নয়নকর্মী আইয়ুব আলী, প্রধান সহকারী ইসমাইল প্রধান ও সহকারী হানিফ মিয়া।

এর আগে গত সেপ্টেম্বর দু’টি পৃথক চিঠিতে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে এই আট ব্যক্তিকে বহিষ্কার করে তিতাস কর্তৃপক্ষ। এছাড়া এই আটজনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠানো হয়। গত ১০ সেপ্টেম্বর এই মামলার তদন্তভার সিআইডিকে হস্তান্তর করে পুলিশ। ওই দিনই নারায়ণ সিআইডি’র ইনস্পেক্টর এবং এই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বুলবুল হোসেনের নেতৃত্বাধীন একটি দল বাইতুস সালাত জামে মসজিদ পরিদর্শন করেন। এ সময় তার প্রত্যক্ষদর্শীদের বক্তব্য শোনের এবং মামলা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করেন।

উল্লেখ্য, গত ৪ সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা এলাকার বাইতুস সালাত জামে মসজিদে এশার নামাজ চলাকালীন বিস্ফোরণের ঘটনায় নারী শিশুসহ ৫০ জন দগ্ধ হন। এর মধ্যে ৩৭ জন গুরুতর দগ্ধ হন। তাদের রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। এর মধ্যে শনিবার সকাল পর্যন্ত ৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং একজন সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন।

নচ/চখ

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...