দেশ থেকে ইলিশের শুভেচ্ছা চালান পাঠানোর দিনেই পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করল ভারত

অর্থনীতি নিউজ : বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত। তবে বাংলাদেশ সরকারের দেয়া শুভেচ্ছা উপহার স্বরূপ ১৪৫০ মেট্রিক টন ইলিশের প্রথম চালান বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে প্রবেশ করেছে একই দিনে।

বেনাপোল কাস্টমস হাউজের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা শামীম হোসেন জানায়, ১৪ সেপ্টেম্বর সোমবার সন্ধ্যা ৬টার সময় কাস্টমস ও বন্দরের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে ইলিশের ট্রাক দুটি প্রবেশ করে।

একই দিন পেট্রাপোল কাস্টমস কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে সিএন্ডএফ এজেন্ট কার্তিক চক্রবর্তী জানিয়েছেন পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সোমবার থেকে সব ধরনের পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ থাকবে।

তিনি বলেন, সম্প্রতি ভারতের বিভিন্ন প্রদেশে অতিবৃষ্টি ও বন্যা হওয়ায় যেসব অঞ্চলে পেঁয়াজ উৎপাদন হতো সেখানে পেঁয়াজের উৎপাদন ব্যাহত হয়েছে।

যার কারণে পেঁয়াজের সরবরাহ কমায় ভারতের বাজারেই পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। এ অবস্থায় পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি রাখতে সোমবার ভারত সরকার পেট্রাপোল কাস্টমসকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন পূর্ব ঘোষণা ছাড়া বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করলো দেশটি। তবে এ ঘোষণায় কিছুটা সমস্যা হলেও গতবারের মতো খারাপ পরিস্থিতি হবে না বলে মনে করছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

গত বছরের তিক্ত অভিজ্ঞতার কারণে বেশ আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় চলতি মাস শেষেই পেঁয়াজ আসছে তুরস্ক থেকে। এমনকি পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে খোলাবাজারে টিসিবির ২৭৫ ট্রাকে ইতোমধ্যে প্রতি কেজি ৩০ টাকা দরে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু হয়েছে।

এদিকে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করায় বেনাপোলের ওপারে পেট্রাপোলে আটকা পড়েছে পেঁয়াজভর্তি প্রায় ১৫০টি ট্রাক। একই অবস্থা অন্যান্য স্থলবন্দরেও। ভারতের শুল্ক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সোমবার কিছু নীতিগত পরিবর্তন হওয়ার কারণে পেঁয়াজের রপ্তানি বন্ধ করা হয়েছে।

বেনাপোলসহ বিভিন্ন স্থানের পেঁয়াজের আমদানিকারক ও ব্যবসায়ীরাও লোকসান থেকে বাঁচতে ইতিমধ্যে নড়েচড়ে বসেছে। তাছাড়া পেঁয়াজ আমদানি বন্ধের খবরে সোমবার সন্ধ্যার পরপরই ৬৫ থেকে ৭৫ টাকা কেজিতে খুচরা বাজারে বিক্রি হয় ভারতীয় পেঁয়াজ। যা গত একমাস আগেও কেজি প্রতি দাম ছিল মাত্র ২৫ থেকে ৩০ টাকা।

এর আগে গত বছরও ভারত বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছিল। ফলে দেশে পেঁয়াজের দাম বাড়তে থাকে হু হু করে। সেসময় বাড়তে বাড়তে ৩০০ টাকায় ঠেকেছিল দাম।

এ বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি গণমাধ্যমকে বলেন, ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি হঠাৎ করে বন্ধ দেওয়ায় কিছুটা সমস্যা হবে ঠিক তবে আমরা গতবারের তিক্ত অভিজ্ঞতা থেকেই বিকল্প মার্কেট হিসেবে অন্যান্য দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির ব্যবস্থা করে ফেলেছি।

তারা আমাদের সঙ্গে কোনো ধরনের আলোচনা ছাড়াই হঠাৎ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে। আমরা তুরস্ক, চীন, মিয়ানমার, মিশর থেকে পেঁয়াজ আমদানির জন্য যোগাযোগ করেছি।

তিনি বলেন, আমাদের কাছেও পর্যাপ্ত পেঁয়াজ আছে। তুরস্ক থেকে কিছু কিছু আসা শুরু হয়েছে। এই মাস শেষে তুরস্ক থেকে পেঁয়াজ চলে আসবে। ধাপে ধাপে ১০ দিন পর পর তিন চার হাজার টন করে আসবে।

চখ/রাজীব

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...