শাহ আব্দুল করিম ছাড়া ১১ বছর

ডেস্ক নিউজ : ‘সখি কুঞ্জ সাজাও গো, আজ আমার প্রাণনাথ আসিতে পারে`, ‘বন্দে মায়া লাগাইছে, পিরিতি শিখাইছে, কিংবা ‘কোন মেস্তরী নাও বানাইলো কেমন দেখা যায়, ঝিলমিল ঝিলমিল করে রে ময়ুর পঙ্খী নাও’- অসংখ্য জনপ্রিয় গানের স্রষ্টা বাউল সম্রাট শাহ আবদুল করিম। এ গুণী সাধকের ১১ তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ।

একুশে পদকপ্রাপ্ত এই বাউল সম্রাট ২০০৯ সালের ১২ সেপ্টেম্বর ৯৩ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন।

তার জন্ম ১৯১৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার উজানধল গ্রামে অতি সাধারণ পরিবারে। মৃত্যুও এখানে। মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি মানুষকে আনন্দ দেয়ার পাশাপাশি, সমাজ ও রাষ্ট্রের নানা অসংগতির কথা গানে গানে জানিয়ে গেছেন। মৃত্যুর পর সর্বস্তরে বিশেষ করে সাধারণের কাছে আরো বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেন এই মরমী সাধক।
তার আফতাব সঙ্গীত, গণসঙ্গীত, কালনীর ঢেউ, ধলমেলা, ভাটির চিঠি, কালনীর কূলে ও শাহ আব্দুল করিম রচনা সমগ্র নামে জনপ্রিয় সব গানের বই আমাদের জন্য অমূল্য সম্পদ।
তাকে বলা হয়, সমাজ পরিবর্তনের চারণকবি। গ্রামের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বাউলা গানে মেহনতী মানুষের অধিকার আদায়, প্রেম, বিরহ, স্রষ্টার সৃষ্টি দর্শন নিয়ে গান গাইতে গাইতে নিজেকে চিনিয়ে গেছেন তিনি। পুরো ভাটি অঞ্চল ছাড়িয়ে তার নাম ছড়িয়ে পড়েছে বাংলা ভাষাভাষি সকল মানুষের কাছে। তিনি ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধকালে গণসংগীত গেয়ে গেয়ে মানুষকে দেশপ্রেমে উজ্জীবিত করেছেন।

কর্মের স্বীকৃতি হিসেবে অর্জন করেন একুশে পদক, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা, সিটিসেল-চ্যানেল আই মিউজিক এ্যাওয়ার্ডসহ দেশ বিদেশের অসংখ্য পুরস্কার।
শাহ আবদুল করিমের স্মৃতি বিজড়িত নানা নিদর্শন, স্মারক, পদক ও বিভিন্ন সম্মাননা রাখার জন্য হয়েছে যাদুঘর। তবে তার নিজের হাতে প্রতিষ্ঠিত শাহ আব্দুল করিম সংগীতালয়টি আজো চালু করা যায়নি। বহু আশ্বাসের পরও কমপ্লেক্স ভবন নির্মাণের কাজ শুরু হয়নি এখনো।

এদিকে বাউল সম্রাটের প্রয়াণ দিবসে এবার নেই কোনো কর্মসূচি। তবে উদীচী দিরাই উপজেলা শাখার আয়োজনে আজ (১২ সেপ্টেম্বর) রাতে গানে গানে ফেইসবুক লাইভে তাকে স্মরণ করা হবে।
এসএএস/

Loading...