চট্টগ্রামে রিকশা শ্রমিক অপহরণ

অপহরণ নাকি আত্মগোপন;ধোঁয়াশায় পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নগরীর খুলশীর সেগুনবাড়িতে অপহণের ৪দিন পরেও খোঁজ মেলেনি রিকশা গ্যারেজের শ্রমিক বাবুর। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী বাবুর স্ত্রী পিংকি আক্তার বৃহস্পতিবার (২৮ আগস্ট) বিকেলে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন।

পরিবারের দাবি, গত ২৪ আগস্ট রাত ১টার দিকে অজ্ঞাত ৪-৫ জন ব্যাক্তি তাকে গাড়িতে তুলে নিয়ে যায়। এরপর থেকে তার কোন খোঁজ মিলছে না।

বাবুর স্ত্রী পিংকি আক্তার সাংবাদিকদের অভিযোগ করে বলেন, ঘটনার দিন বাবু বাসায় ঘুমিয়ে ছিলো। অজ্ঞাত এক ব্যক্তি বাইরে থেকে তাকে ডাকাডাকি করলে বাবু হাতের মোবাইল ফোনটি নিয়ে ঘরের বাইরে যায়। মূহুর্তের মধ্যে একটি গাড়ি তাকে তুলে নিয়ে চলে যায়। এরপর থেকে তাকে পাওয়া যাচ্ছে না। তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটিও বন্ধ রয়েছে।

পিংকি আক্তার বলেন, প্রতিবেশী ফয়সালের বাসায় অপহরণকারীরা প্রথমে নক করলে ভেতর থেকে দরজা খুলে তারা (অপহরণকারীরা) বাবুর বাসা কোনটা জানতে চায়। পরে ফয়সালের মা বাবুর বাসা দেখিয়ে দেন। তখন ওই দলে ৪-৫ জন সদস্য ছিলো। তবে ঘটনাটি গভীর রাতে হওয়ায় তাদের কাউকে তিনি চিনতে পারেন নি।

এ কথার সত্যতা যাচাই করতে ফয়সালের মায়ের সাথে কথা বলতে তার বাসায় গেলে তাকে পাওয়া যায় নি। তবে আশপাশের এলাকার লোকজনও ফয়সালের মায়ের এই বক্তব্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এ ঘটনায় আহাজারি যেন থামছেই না বাবুর পরিবারের। বাবুর ষাটোর্ধ্ব নানী নাতির খোঁজে আহাজারি করতে করতে বারবার অজ্ঞান হয়ে পড়ছেন।

এদিকে ভুক্তভুগীর  পরিবার এটিকে অপহরণ বললেও খুলশী থানা একটি সাধারন ডায়েরী (জিডি) রের্কড করে দায় সেড়েছে বলে অভিযোগ। বাবুর স্ত্রী বলছে ঘটনার দিন রাত ২টার দিকে পুলিশ এসে আশেপাশে জিজ্ঞাসাবাদ করে চলে যায়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আনোয়ারকে ফোন দিলে তিনি শুধু খুঁজতেছি বলে আশ্বাস দিচ্ছে। ঘটনাটি দৃশ্যত কোন গুরুত্ব পাচ্ছে না এমনটায় দাবি তাদের।

পরিবারের এমন দাবির সত্যতা জানতে খুলশী থানায় গেলে ওসিকে পাওয়া যায় নি। পরে ওসি প্রনব চৌধুরীর সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি চট্টলার খবরকে জানান, বাবু অপহরণ হয়েছে নাকি নিজে থেকে আত্মগোপনে আছেন সেটি আমরা নিশ্চিত নই। তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে তার অবস্থান জানার চেষ্টা করা হচ্ছে।

জিডির তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক এস আই আনোয়ার হোসেন চট্টলার খবরকে জানান, বাবুর স্ত্রীর যে ভাষ্য তা সঠিক নয়। তিনি বলছেন ঘটনার দিন রাত ১টার দিকে তার স্বামীকে বাবু নামে বাইরে থেকে অজ্ঞাত কেউ ডেকে নেয়। কিন্তু আমরা তার মোবাইল ট্র্যাক করে বিকেল ৪টা ১০ মিনিট পর্যন্ত তার অবস্থান খুলশীর ওয়ার্লেস এলাকায় পেয়েছি।

তারপর থেকে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ। এর মধ্যে বাবুর ফোনে কারা কারা যোগাযোগ করছে কিংবা বাবু কার কার সাথে কথা বলেছে তা জানার চেষ্টা করছি। এর বেশি কিছু বলতে পারছি না। আপনার আরও কিছু জানার থাকলে ওসি স্যারের সাথে কথা বলেন।

বিষয়টি নিয়ে কথা হয় বায়েজিদ বোস্তামী জোনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার পরিত্রাণ তালুকদারের সাথে।

তিনি চট্টলার খবরকে জানান, বাবুর ঘটনাটি অপহরণ এটা শতভাগ নিশ্চিত নয় পুলিশ। তাই পুলিশের পক্ষ হতে প্রাথমিকভাবে একটি জিডি রেকর্ড করা হয়েছে।

আমরা সবকিছু বিবেচনা করে এগিয়ে যাচ্ছি। এখন কিছু বলা যাচ্ছে না। তবে বাবু এলাকায় রাজনীতি করতো বলে প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি। রাজনৈতিক কিছু আছে কিনা সেটাও খতিয়ে দেখছি। সম্ভাব্য সবকিছুই আমলে নিচ্ছি। আমরাও বাবুকে ফিরে পেতে চাই।

কামরুল/চখ

Loading...