ইতিহাস গড়লেন কমলা হ্যারিস

ডেস্ক নিউজ : প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ এবং দক্ষিণ এশীয় নারী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান কোনও রাজনৈতিক দলের ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে মনোনয়ন নিশ্চিতের মাধ্যমে ইতিহাস গড়েছেন ক্যালিফোর্নিয়ার সিনেটর কমলা হ্যারিস।

বুধবার ডেমোক্র্যাটিক পার্টির চার দিনব্যাপী জাতীয় সম্মেলনের তৃতীয় মনোনয়ন নিশ্চিত হয় তার। এরপরই অর্থনৈতিক সংকট ও মহামারির মধ্যে সংগ্রামরত মার্কিনিদের পক্ষে থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি। মার্কিন সম্প্রচারমাধ্যম সিএনএন’র প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

গত সপ্তাহে ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেনের রানিংমেট হিসেবে কমলা হ্যারিসের নাম ঘোষণা করেন। বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে কমলার মনোনয়ন নিশ্চিত হওয়ার পর তিনি নিজেকে একজন ভারতীয় ও জ্যামাইকান অভিবাসীর মেয়ে হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেন। কমলা বলেন, তার ভারতীয় মা তাকে শিখিয়েছেন, সব মানুষের লড়াইয়ের প্রতি সচেতন ও সহানুভূতিশীল হতে আর বিশ্বাস রাখতে ন্যায়বিচারের জন্য সংগ্রাম একটি যৌথ দায়িত্ব।

কমলা হ্যারিস বলেন, তার এবং সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন যৌথভাবে এমন এক দেশের ওপর বিশ্বাস রাখেন যেখানে সবাইকে স্বাগত জানানো হয়, সেখানে তাকে কেমন দেখতে, কোন জায়গা থেকে এসেছেন সেগুলো কোনও বিষয় হয়ে দাঁড়ায় না। সব আমেরিকান প্রতিটি খুঁটিনাটি বিষয়ে একমত হতে না পারলেও কিছু মৌলিক বিশ্বাসে ঐক্যবদ্ধ বলে জানান কমলা। তিনি বলেন, এসব বিশ্বাসের মধ্যে রয়েছে প্রতিটি মানুষই অমূল্য সম্পদ, সহানুভূতি, মর্যাদা ও সম্মান পাওয়ার যোগ্য।

কমলা হ্যারিস প্রায়ই বলে থাকেন, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কৌশলের কারণে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকেরা সীমান্তে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন, অভিবাসীদের সম্মানহানি হয়েছে, রাজনৈতিক বিরোধীদের নির্যাতন করেছেন আর জর্জ ফ্লয়েডের হত্যাকাণ্ডের পর রাজপথে বিক্ষোভকারীদের নিপীড়ন করতে সরকারি কর্মকর্তাদের আহ্বান জানিয়েছেন।

মিনিয়াপোলিসে শহরে পুলিশ হেফাজতে নিহত কৃষ্ণাঙ্গ নাগরিক জর্জ ফ্লয়েডের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে কমলা হ্যারিস মার্কিন নাগরিকদের বর্ণবাদ এবং জাতিবিদ্বেষের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে শামিল হওয়ার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘বর্ণবাদের কোনও ভ্যাকসিন নেই। কাজের মধ্য দিয়েই তার অবসান ঘটাতে হবে। জর্জ ফ্লয়েডের জন্য, ব্রেয়ন্না টেইলরের জন্য এবং আরও অনেকের জন্য… আমাদের সন্তানদের জন্য আমাদের সকলের জন্য। আইনে বর্ণিত সমানাধিকারের প্রতিশ্রুতি পূরণে আমাদের সকলকেই কাজ করতে হবে। কারণ, সবাই স্বাধীন না হওয়া পর্যন্ত আমরা কেউই স্বাধীন নই।’
এসএএস/

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...