অনিয়ম-দুর্নীতি বরদাশত করা হবে না সুজন

নিজস্ব প্রতিবেদক : চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক আলহাজ্ব মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন বলেছেন, পারিপার্শ্বিক পরিবেশ উন্নয়নে আত্ম সচেতনতাই প্রধান নিয়ামক শক্তি। সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্ন সেবকরা দিন-রাত পরিশ্রম করে বাসা-বাড়ীতে ব্যবহার্য্য ময়লা-আবর্জনা সংগ্রহ করলেও অনেকে অসচেতনভাবে রাস্তা, ড্রেন বা খালে ময়লা আবর্জনা ফেলে পানি নিস্কাশনে বিঘ্ন ঘটায়। ফলে নগরবাসীকে জলজটের দুর্ভোগে পড়তে হয়। তিনি বলেন, আমরা যদি একটু সচেতনতার সাথে জীবন-যাপন করি তাহলে অনেক বিড়ম্বনা থেকেই রেহাই পাওয়া সম্ভব।

মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) নগরীর কাপাসগোলা, বাদুরতলা ও মুরাদপুর এলাকায় বৃষ্টির পানিতে সৃষ্ট জলজটের উৎস সরেজমিনে পরিদর্শনে গিয়ে এলাকাবাসীর সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, চট্টগ্রাম নগরীতে একইসাথে অনেক উন্নয়ন সংস্থা কাজ করছে এর মধ্যে সিডিএ, ওয়াসা, সড়ক ও জনপথ ও বিদ্যুৎ অন্যতম। এতে পরিলক্ষিত হচ্ছে যে, শুধুমাত্র সমন্বয়হীনতার কারনে নগরবাসীকে সীমাহীন জলজট ও যানজটের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তিনি বলেন, চট্টগ্রাম নগরীতে যে সংস্থাই উন্নয়ন কাজ করুক না কেন যথাযথ পরিকল্পনা অনুযায়ী করতে হবে। নগর উন্নয়ন পরিকল্পনায় কোনো অনিয়ম, দুর্নীতি হলে বরদাশত করা হবে না। আমি বারংবার বলে যাচ্ছি নগর উন্নয়নে সমন্বয়ের কোন বিকল্প নাই।

প্রশাসক পরিদর্শনকালে প্রত্যক্ষ করেন যে, কিছু কিছু স্থানে অবৈধ স্ল্যাব বসিয়ে ব্যবসা পরিচালনা ও পানি চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে। তিনি অনতিবিলম্বে এসব স্ল্যাব নিজ জিম্মায় সরিয়ে নিতে সকলের প্রতি আহবান জানান।

তিনি বলেন, আজকে আপনাদের একজন আপনজন হিসেবে বলছি, আগামীতে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনার মাধ্যমে ব্যবস্থা নিব। কাপাসগোলা ও চকবাজার খালসহ বেশ কিছু জায়গায় বর্জ্যের স্তুপ দেখে পরিচ্ছন্ন বিভাগের কর্মরতদের উপর অসন্তোষ প্রকাশ করেন এবং আজকের মধ্যেই এসব ময়লা দ্রুত অপসারনের নির্দেশনা দেন।

এসময় তিনি নগরবাসীকে জলজট না হওয়ার জন্য খাল, নালা-নর্দমায় ময়লা না ফেলার আহবান জানান এবং জলজট নিরসনে নগরবাসীর সহযোগিতা কামনা করেন। বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত সড়কের খানা-খন্দক দ্রুত গতিতে মেরামত করার জন্যও সংশিষ্ট প্রকৌশলীদের প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা প্রদান করেন।

পরিদর্শন কালে মেয়রের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শফিকুল মান্নান সিদ্দিকী, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী কামরুল ইসলাম, নির্বাহী প্রকৌশলী ফরহাদুল আলম, উপ প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা মোরশেদুল আলম চৌধুরী, চকবাজার থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনছারুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, মোরশেদ আলম উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের আরও খবর
Loading...