চট্টগ্রামে এসএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষণে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬৩ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক :  চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে এবার এসএসসিতে ফল পুনঃনিরীক্ষণে জিপিএ-৫ পেয়েছে আরও ৬৩ জন পরীক্ষার্থী। এর মধ্যে একজন এর আগে অকৃতকার্য হিসেবে ঘোষিত হলেও পুনঃনিরীক্ষণে জিপি-৫ পেয়ে পাস করেছেন।

মঙ্গলবার (৩০ জুন) ঘোষিত পুনঃনিরীক্ষণের এই ফলাফলের কথা জানিয়েছেন চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক নারায়ণ চন্দ্র নাথ।

চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের অধীনে এবার ১ হাজার ৪৩টি স্কুলের এক লাখ ৪৩ হাজার ৮২৩ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেন। গত ৩১ মে ঘোষিত ফলাফলে এক লাখ ২১ হাজার ৮৮ জন পাস করেন। পাসের হার ৮৪.৭৫ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৯ হাজার ৮ জন। নতুনভাবে ৬৩ জনসহ জিপিএ-৫ পাওয়া পরীক্ষার্থীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯ হাজার ৭১ জনে।

ফলাফল ঘোষণার পর ২০ হাজার ৫৫০ জন পরীক্ষার্থী ৫২ হাজার ২৪৬টি উত্তরপত্র পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন করেন।

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক নারায়ণ চন্দ্র নাথ বলেন, পুনঃনিরীক্ষণে ১২০০ পরীক্ষার্থীর ১২৩৫টি উত্তরপত্রের প্রাপ্ত নম্বর পরিবর্তন হয়েছে। নম্বর পরিবর্তনের কারণে ফল পরিবর্তন হয়েছে ৬০৯ জনের। বাকি ৫৯১ জনের শুধু প্রাপ্ত নম্বর পরিবর্তন হয়েছে, কিন্তু গ্রেড পরিবর্তন হয়নি।

ফল পরিবর্তন না হলেও উত্তরপত্রে যাদের নম্বর বেড়েছে সেটা আমরা সংযুক্ত করে মূল সার্ভারে দিচ্ছি। ফল পরিবর্তন না হলেও নম্বর বেড়ে যাবার কারণে অনেক শিক্ষার্থী পছন্দমতো কলেজে ভর্তির সুযোগ পাবেন।

ফল পরিবর্তন হওয়া ৬০৯ জনের মধ্যে ফেল থেকে পাস করেছে ৪১ জন। ফেল থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে একজন। গ্রেড পরিবর্তন হয়ে জিপিএ-৫ পেয়েছে আরও ৬২ জন। জিপিএ-৫ এর নিচে গ্রেড পরিবর্তন হয়েছে ৪১৯ জনের।

এছাড়া পুনঃনিরীক্ষণের পরও অকৃতকার্য আছেন ১২ জন। গ্রেড পরিবর্তন হয়েছে কিন্তু ফল পরিবর্তন হয়নি এমন পরীক্ষার্থীর আছেন আরও ৭৫ জন।

২০১৯ সালে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের পর ৪৯২ জনের ফল পরিবর্তন হয়েছিল। নতুনভাবে জিপিএ-৫ পেয়েছিল ৪২ জন।

এসএএস/এএমএস

Loading...