অধিকাংশ পাতানো ম্যাচে জড়িত ভারত

পাতানো ম্যাচের কথা উঠলে সবার আগে পাকিস্তানের নাম চলে আসে। কিন্তু অধিকাংশ পাতানো ম্যাচের সাথে ভারত জড়িত বলে দাবি করেছেন আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী ইউনিটের (এসিইউ) প্রধান স্টিভ রিচার্ডসন।

রিচার্ডসনের মতে, ফিক্সিং ছড়িয়ে পড়েছে ভারতের সব স্তরের ক্রিকেটে। এজন্য প্রয়োগ করা হচ্ছে নতুন সব কৌশল। গত কয়েকমাস আগে কর্ণাটক প্রিমিয়ার লিগের (কেপিএল) খেলাও বাতিল হয়েছে এই ফিক্সিংয়ের জন্যই। এনিয়ে তদন্তও চালাচ্ছে পুলিশ।

শনিবার (২০ জুন) আইসিসির ক্রীড়া আইন ও নীতিমালা সংক্রান্ত এক অনলাইন সভায় রিচার্ডসন বলেছেন, আমরা বর্তমানে যে ৫০টি ম্যাচ ফিক্সিং নিয়ে তদন্ত করছি তার বেশিরভাগেই ভারতের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে।

এই এসিইউ কর্মকর্তার দেয়া তথ্যে এখনও ভারতের আট জনের নাম রয়েছে। যারা খেলোয়াড়দের সঙ্গে সব সময়ই যোগাযোগ রেখে চলছে।

‘আমি এখনও অন্তত আট জনের নাম বিসিসিআইয়ের ক্রিকেট পরিচালনাকারীদের কাছে দিতে পারব, যারা প্রতিনিয়ত খেলোয়াড়দের সঙ্গে যোগাযোগ করে থাকে। এরাই খেলোয়াড়দের টাকা দিয়ে থাকে।’

পরিত্রাণের উপায় হিসেবে রিচার্ডসন দেখছেন ফৌজদারি আইন করাকে। এরই মধ্যে প্রথম দেশ হিসেবে শ্রীলঙ্কা এর বিরুদ্ধে ফৌজদারি আইন জারি করেছে।

ভারতীয় ক্রিকেটে ফিক্সিংয়ের ঘটনার প্রকাশ পায় ২০১৩ সালে আইপিএল দিয়ে। এরপর ঘটনার বিচার হয়েছে। আইসিসিও ভেবেছিল তাতে অন্তত সতর্ক হবে, হবে না ফিক্সিং।

Loading...